নিখোঁজ আলুওয়ালিয়া, সাংসদের নামে থানায় মিসিং ডায়েরি

0
533

নিজস্ব সংবাদদাতা, দুর্গাপুর :- গত লোকসভা নির্বাচনে বর্ধমান দুর্গাপুর আসনটিতে কে লড়বেন তা নিয়ে দীর্ঘ টালবাহান চলেছিল বিজেপির অন্দরে। অবশেষে ভোটের মুখে চার বারের রাজ্যসভার সাংসদ সুরিন্দর সিংহ আলুওয়ালিয়ার নাম ঘোষণা করে দল। এত দেরীতে নাম ঘোষণা করায় ঠিক মতো প্রচারেরও সময় পাননি আলুওয়ালিয়াজি। তাতে অবশ্য ভোটের ফলে কোনও প্রভাব পড়েনি। মোদি ঝড়ে উড়ে গিয়েছিল ঘাসফুল। তৃণমূলের প্রাক্তন সাংসদ মমতাজ সংঘমিত্রা চৌধুরীকে হারিয়ে জয়ী হয়েছিলেন সুরিন্দর সিংহ। এখন তিনি বর্ধমান দুর্গাপুরের সাংসদ। অবাঙালী এই সাংসদের রাজনীতির আতুঁড়ঘরও ছিল আসানসোল। তার উপর শ্বশুর বাড়িও আসানসোলে। বাঙলা বলেন বাঙালীদের মতোই। আবার বর্ধমান-দুর্গাপুর আসনে অবাঙালি ভোটারের সংখ্যাও প্রচুর। ফলে মোদি ঝড়ের পাশাপাশি এই অনুকুল পরিবেশে জমি পেতে অসুবিধা হয়নি বিজেপি সাংসদের। কিন্তু এলাকার মানুষ হিসেবে পরিচিত সেই সাংসদের বর্তমানে আর কোনও খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ তৃণমূলের। তৃণমূলের পশ্চিম বর্ধমান জেলা সাধারণ সম্পাদক চন্দ্রশেখর বন্দ্যোপাধ্যায়ের অভিযোগ, “একটার পর একটা কারখানা ধুঁকছে একসময় ভারতের রূঢ় হিসেবে পরিচিত দুর্গাপুর শিল্পাঞ্চলে। অথচ খোঁজই পাওয়া যাচ্ছেনা এলাকার সাংসদের। তাই আমরা বাধ্য হয়ে পুলিশকে জানিয়েছি সাংসদ সুরিন্দর সিংহ আলুওয়ালিয়াকে দয়া করে একটু খুঁজে দিন। যাতে করে আমরা সমস্যার কথাগুলি তাকে জানাতে পারি।” শুক্রবার কোকওভেন থানায় বিজেপি সাংসদের নামে একটি মিসিং ডায়েরি করেন স্থানীয় তৃণমূল কর্মীরা। এই ইস্যুতে এদিন থানার সামনে বিক্ষোভও প্রদর্শন করে তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা। যদিও এই ঘটনাকে তৃণমূলের হতাশার বহিঃপ্রকাশ বলে দাবি করেছে স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব। বিজেপির পশ্চিম বর্ধমানের জেলা সভাপতি লক্ষণ ঘোড়ুইয়ের পাল্টা দাবি, “কাজ করেননি বলেই পরাজিত হয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ। তাই কাজের নিরিখে আমরাই এগিয়ে।”

তবে এই প্রথমবার বার নয়। ২০১৪ লোকসভা নির্বাচনে গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার সমর্থনে বিজেপি প্রার্থী হিসেবে দার্জিলিং থেকে জেতেন সুরিন্দর সিংহ আলুওয়ালিয়া। তখনও সাংসদের বিরুদ্ধে দার্জিলিঙকে সময় না দেওয়ার অভিযোগও তুলেছিল পাহাড়ের প্রায় সব ক’টি দল। এমনকি জিএনএলএফ তাঁকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না বলে নিখোঁজ ডায়েরি করেছিল।

সব মিলিয়ে পুজোর সাথে সাথে শিল্পাঞ্চলেও আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের ঢাকে কাঠি পড়ে গেলে বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here