মহরমের মাতমে রাতভর সম্প্রীতির নজির, মুর্শিদাবাদে এশিয়ার বৃহত্তম ইমাম বাড়ায় ‘আগুনে মতম’এ দুই সম্প্রদায়ের মানুষের যোগদানে

0
672

সংবাদদাতা, মুর্শিদাবাদ:- এযেন এক মাহিন্দ্র ক্ষন।একদিকে ঐতিহাসিক শহর মুর্শিদাবাদ জুড়ে শোকের দিন হিসেবে যেমন দিনভর পালিত হয় মহরমের মাতম।তেমন লালবাগ শহরে অবস্থিত এশিয়ার সর্ব বৃহৎ ইমামবাড়ায় রাতে আয়োজন করা হল সম্প্রীতির ‘আগুনে মাতম’এর ।মুসলিম সমাজের কাছে এই দিনটি অত্যন্ত তাৎপর্য পূর্ণ।কেননা আরবি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী মহরম প্রথম মাস।এই মাসের ১০ তারিখ(আরবী কালেন্ডার অনুযায়ী) অর্থাৎ আশুরার দিন এজিদ বাহিনীর হাতে পরাজিত হয়ে শহীদ হয়েছিলেন হজরত ইমাম হোসেন । ইমাম হোসেনের মৃত্যু কে ঘিরে শোকের দিন হিসেবে পালিত মহরম।সেই শোক কে স্মরণ করেই লালবাগ ইমাম বাড়ার কাছে শুরু হয় এই ‘আগুন মাতম’।সেখানে দেখা মিলল এক জলন্ত আগুনের উপর দিয়ে হেঁটে যাওয়া ভক্তদের নিষ্ঠার এক অভূতপূর্ব নিদর্শন। নবাবি আমল থেকে চলে আসা এই রেওয়াজে আজও বিরাম নেই।কেবল মুসলিম সমাজের মানুষ জন নয় এই আগুন মাতমে অংশ নিল স্থানীয় হিন্দু ভক্তরাও।যেখানে এবার আগুনের উপর হাঁটবে মুসলিম সম্প্রদায়ের পাশাপাশি সঞ্জয় মণ্ডল , সন্তোষ মণ্ডলরাও। সঞ্জয় , সন্তোষ দের দাবি , মহরমের এই শোকের দিন কে আমরা আলাদা ভাবে দেখি না , আমরাও বিভিন্ন মাতম করে শোক পালন করি । এতে আমাদের মনে শান্তি লাভ হয়।এব্যপারে নবাবের বংশ ধর সৈয়দ রেজা আলি মীর্জা নবাবী আমেজে সাফ বলেন , শোকের মহরমে আমাদের শহরের বুকে যে সম্প্রীতির পরিবেশ গড়ে উঠেছে , তা আর নতুন কিছু নয় , এ আমাদের প্রাচিন ঐতিহ্য । এই তো আমাদের মহরমের সম্মেলনি ময়দানে দুর্গা পুজার প্যান্ডেল হয়েছিল । ফলে আমাদের কাছে সম্প্রীতি বড় উৎসব।এই দিন ইমাম বাড়ি থেকে নবাবী আমলের আলম -পাঞ্জা ,তাবুত , দুলদুল (ঘোড়া) সহগে কারবালার উদ্দেশে বের হয় জুলুস । সামনে দুলদুল(ঘোড়া) কে সুন্দর করে সাজিয়ে নিশানা উঁচা করে চলতে থাকে জুলুস। সঙ্গে সমেবেত আওয়াজ ওঠে হায় হোসেন, হায় হাসান । । এই বিষয়ে স্থানীয় প্রবীণ মণ্ডল, টুম্পা রায় বলেন, মহরম মানেই শোকের মাস। এই মাসের প্রতিটি দিন কে অত্যান্ত তাৎপর্য পূর্ণ ভাবে পালন করেন এখানকার মুসলিম সমাজ, আমরা তাদের ওই শোকের দিন গুলি কে শ্রদ্ধা জানাতে উপস্থিত হই।মূল অনুষ্ঠান রাতভর সম্পন্ন হল নবাবের শহর লালবাগে।সেখানে সকল ধর্মের মানুষ ওই শোকের অনুষ্ঠানে হাজির হয়ে তারাও অনুতাপ করলেন।লালবাগ কোর্টের তরুণ আইনজীবী দেবাঞ্জন মজুমদার বলেন,”শহরের বুকে এই ধরণের ভাতৃত্বের নিদর্শন একটা মাইল ফলক যা সকল সম্প্রদায়ের মানুষ কে একযোগে বেঁধে রেখেছে”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here