আবার ও স্বমহিমায় “বাঁকুড়ার রানী” মুকুট্মনিপুর

0
441

সংবাদদাতা, বাঁকুড়াঃ- লকডাউন শেষ। তবে শেষ নয় “বাঁকুড়া রানীর” সৌন্দর্য। বরং আড়াই মাস কোনোরকম ঝঞ্ঝাট ছাড়াই নির্জন থাকার ফলে আনলক ১ পর্বেই নিজের শোভা দেখাতে শুরু করেছে মুকুট্মনিপুর। তবে এখনই পর্যটকদের আগমনের তাড়াহুড়োঁ করে কোনরকম ঝুঁকি নিতে নিমরাজি প্রশাসন। জল, জঙ্গল আর পাহাড়িয়া সৌন্দর্য দেখে অভিভূত হলেও তাকে উপভোগ করতে হলে আগে করতে হবে জীবানু দমন। তাই দক্ষিনবঙ্গেঁর অন্যতম এই পর্যটন কেন্দ্র পুরোপুরি স্যানিটাইজ করার কাজ শুরু করা বুধবার সকাল থেকেই।
এদিন স্থানীয় বিধায়ক ও মুকুট্মনিপুর ডেভেলপমেন্ট অথর‍্যাটির ভাইস প্রেসিডেন্ট জোৎস্না মান্ডির উদ্যোগে মুকুট্মনিপুরের ভিউ পয়েন্ট থেকে শুরু করে জেলা পরিষদের স্টল, নৌকাঘাট, মেনগেট, যুব আবাসন প্রভৃতি সমস্ত জায়গায় জীবানুনাশক স্প্রে করেন দমকল দপ্তরের কর্মীরা।


সৌন্দর্যে ভরপুর এই পর্যটনকেন্দ্র সর্বদা ট্যুরিস্টে জমজমাট। জলাধার তৈরীর সময় থেকেই লকডাউন, করোনা সতর্কতার দ্রুন গত ৩ মাসের এই পর্যটক শুন্য ছবি দেখে রীতিমত স্তম্ভিত স্থানীয় বাসিন্দা ও নৌচালক ব্যবসায়ী, জীবিকা নির্বাহ কারীরা। ফের নতুন করে পর্যটক আসবে, – আপাতত এই আশাতেই দিনপাত করছেন তারা।
স্থানীয় ব্যবসায়ী শৌভিক সাহু বলেন, – বাইরে থেকে পর্যটক না এলে ব্যবসা হবে না। তবে এ বছর বিক্রি কম হলেও দোকান খুলব।


মুকুট্মনিপুর হোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সুদীপ সাহুর মতে, -তিনমাস সব বন্ধ। মানুষ সৌন্দর্য পাগল হলেও জীবনের টান বেশি। তাই অনেকে খোঁজখবর নিলেও ঢু মারতে কেউ আসবেন না। তবে সব রকম ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। বিধায়ক জোৎস্না মান্ডির কথায়, – পর্যটকদের কথা ভেবে এলাকা এমন ভাবেই স্যানিটাইজ করা হচ্ছে যে এবার সকলে আসবেনই।
এখন থেকে জীবানুদের সাথে ভিড় করে নয়, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে “বাঁকুড়ার রানী” মুকুট্মনিপুরের সৌন্দর্য পর্যটকরা কতটা উপভোগ করেন সেটাই দেখার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here