মুর্শিদাবাদ জেলাকে অরেঞ্জ জোনে থেকে গ্রিন জোনে আনার চেষ্টা প্রশাসনের

0
843

সংবাদদাতা, মুর্শিদাবাদঃ- করোনা পরিস্থিতিতে দেশ ও রাজ্যকে কতগুলো জোনে ভাগ করা হয়েছে। রেড জোন অর্থাত্ করোনা সংক্রমিত এলাকা। অরেঞ্জ জোন অর্থাত্ করোনার সংক্রমণ এখানে সামান্যই। আর গ্রিন জোন অর্থাত্ বিগত একুশ দিন ধরে করোনার কোনো কেস এখানে ধরা পড়েনি। বিপদ মুক্ত এলাকাই হলো গ্রিন জোন।

এখন মুর্শিদাবাদ জেলাকে অরেঞ্জ জোনে রাখা হয়েছে। যেহেতু এই জেলার একজন কোভিড আক্রান্ত হয়েছেন। তার চিকিত্সা ও চলছে কোলকাতায়। এখন ও অবধি এই জেলায় করোনা সংক্রমিত হয়ে কেউ মারা যাননি। এখন মুর্শিদাবাদ কে অরেঞ্জ জোন থেকে গ্রিন জোনে আনার চেষ্টা করছে প্রশাসন। বহরমপুর মাতৃসদন কে সম্পূর্ণ রূপে করোনার হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। এছাড়া জেলার প্রত্যেকটি হাসপাতালে আইসোলেশন বিভাগ তৈরি আছে। পৌরসভা থেকে পঞ্চায়েত ও স্থানীয় প্রশাসন নিজের নিজের জায়গায় করোনা পরিস্থিতিকে মোকাবিলা করছেন। রাস্তাঘাট থেকে শুরু করে বাজার সর্বত্র স্যানিটাইজ করছে তারা। যাতে কোনো সংক্রমণ না ঘটে। এ ছাড়া মাইকিং এ সচেতনতামূলক বার্তা ছড়ানো হচ্ছে। অপ্রয়োজনে বাইরে বেড়োতে মানা করা হচ্ছে। বাইরে বেরোলেই মাস্ক নিয়ে যেতে বলা হচ্ছে। ছোট্ট শিশু ও ষাট বছরের উর্ধ্বে মানুষদের বাইরে বেরোনোর উপর সম্পূর্ণ রূপে নিষেধাঞ্জা জারি করা হয়েছে। জেলার চিফ মেডিক্যাল অফিসার জানান-পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণেই রয়েছে। খুব শীঘ্র ই আমরা অরেঞ্জ জোন থেকে গ্রীন জোনে যেতে চলেছি।

আজকে জেলায় লকডাউন না মানায় কিছু মানুষকে গ্রেপ্তার করা হয় ও তাদের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থাও গ্রহণ করা হচ্ছে। জেলায় নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর কোনো অভাব নেই। গোটা জেলাই গণপরিবহন বন্ধ আছে। করোনা মোকাবিলায় দয়া করে সাধারণ নাগরিকরা প্রশাসনকে সহায়তা করুন। লকডাউন কে মেনে চলুন। অকারণে বাইরে বেরোবেন না। অযথা আতঙ্কিত হবেন না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here