নেশা মুক্তি কেন্দ্রে যুবকের মৃত্যু, পরিবারের অভিযোগ পিটিয়ে মারার

0
819

নিজস্ব প্রাতিনিধি,সোনারপুরঃ নেশা মুক্তি কেন্দ্রে এক যুবকের মৃত্যুতে উত্তেজনা ছড়াল সোনারপুরের মালঞ্চ এলাকায়। মৃতের নাম চিন্টু রায় (৩০)। মৃতের বাড়ি জানবাজারে হলেও তিনি পরিবারের সঙ্গে ঠাকুরপুকুর সরশুনা এলাকায় ঘর ভাড়া করে থাকতেন। মৃতের পরিবারের অভিযোগ, চিন্টুকে পিটিয়ে মেরেছেন রি হ্যাব সেন্টারের কর্মীরা। যদিও সেন্টারের কর্তারা এই অভিযোগ অস্বীকার করে জানিয়েছেন অসুস্থতার জন্য চিন্টু মারা গিয়েছেন। এ ব্যপারে সোনারপুর থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে সোনারপুর থানার পুলিশ। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে খবর, মৃত ব্যক্তি পেশায় একজন ক্যাব চালক। তিনি গাঁজা সহ অন্যান্য নেশায় আসক্ত ছিলেন। তাঁর নেশা ছাড়ানোর জন্য কয়েকদিন আগে পরিবারের লোকেরা মলঞ্চের আশ্বাস রি হ্যাব সেন্টারে ভর্তি করেন। দুদিন আগে পরিবারের লোকেরা ওই কেন্দ্রে চিন্টূর সঙ্গে দেখা করতে গেলে কতৃপক্ষ দেখা করতে দেননি।বলেছিলেন ২৮ দিনের আগে দেখা হবে না। অনেক অনুরোধ করলে বলা হয় রবিবার দেখা করতে দেওয়া হবে। তাঁর আগে শনিবার সন্ধ্যায় চিন্টূর মৃত্যু সংবাদ যায় বাড়িতে।মৃত যুবকের মেশো দিলীপ মন্ডল বলেন, ‘নেশা ছাড়ানোর জন্য আট দিন আগে আমরা এই সেন্টারে ভর্তি করি। আমরা শুক্রবার চিন্টুর সঙ্গে দেখা করতে চাইলে রিহ্যাব সেন্টারের কর্মীরা জানান রবিবারের আগে দেখা করা যাবে না। তাঁর আগে শনিবার সন্ধ্যেবেলা ফোন করে প্রথমে বলা হয় চিন্টু অসুস্থ আছে। পরে বলা হয় সে মারা গেছে। সারা দেহে অসংখ্য আঘাতের চিহ্ন। আমাদের অনুমান ওঁকে পিটিয়ে মেরেছে কতৃপক্ষ। সেন্টারের পক্ষ্যে শুভজিত ঘোষ বলেন, ‘ওঁর হেপাটাইটিস সি ছিল। সেটা বেড়ে যাওয়াতেই উনি শনিবার বিকাল তিনটে নাগাদ মারা যান। চিকিৎসা সংক্রান্ত সমস্ত কাগজপত্র আমরা পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছি।‘ আঘাত প্রসঙ্গে উনি বলেন, ওগুলো সব পুরানো দাগ, আগে থেকেই ছিল মৃতের শরীরে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here