নাগরিক আইনের ধন্দের মাঝেই ভুলে ভরা ভোটার লিস্ট ঘিরে চাঞ্চল্য দুর্গাপুরে

0
1369

নিজস্ব প্রতিনিধি, দুর্গাপুরঃ- দেশ জুড়ে চলা নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন ও সম্ভাব্য নাগরিক পঞ্জী (এন. আর. সি.) র বিরুদ্ধে লাগাতার আন্দোলনের পয়লা সারিতেই রয়েছে পশ্চিমবঙ্গঁ। আর সেই পশ্চিমবঙ্গেঁর ই জেলায় জেলায় যে সংশোধিত ভোটার তালিকা প্রকাশিত হয়েছে, তাকে ঘিরেই চরম অনিশ্চয়তা এখন রাজ্যের বেশ কিছু জায়গায়।
গত ১৬ ডিসেম্বর, রাজ্যের অন্যান জায়গার সাথে দুর্গাপুরেও প্রকাশিত হয়েছে সংশোধিত ভোটার-তালিকা। আর সেই তালিকা প্রাকাশ্যে আসতেই চাঞ্চল্যের পাশাপাশি তীব্র প্রতিক্রিয়াও ছড়িয়েছে শহর জুড়েই। বিশেষতঃ দেশে নাগরিকত্বের অন্যতম মাপকাঠি যখন ভোটার তালিকা, তখন সরকারের তৈরী ভোটার তালিকায় এমন গলদ থাকবে কেন? ঘুরপাক খাচ্ছে এই প্রশ্নও।
কিন্তু, কি এমন ভুল রয়েছে ভোটার তালিকায়?
“আগাগোড়াই ভুলে ভরা ভোটার তালিকা। এই সময়ে এই রকম ভোটার তালিকা প্রকাশ, আসলে দ্বায়িত্ব জ্ঞানহীনতার প্রমান। আমরা দেখবো, যে মুখ্যমন্ত্রী রাস্তায় নেমে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের এমন তরো বিরোধিতা করছেন, তিনি এই সব দ্বায়িত্ব জ্ঞানহীন আমলাদের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নিচ্ছেন”, প্রশ্ন প্রদেশ কংগ্রেস নেতা তরুন রায়ের। তিনি বলেন, “এমন ভোটার তালিকা প্রকাশ করে মমতা ব্যানার্জির সরকার আসলে মানুষকে আরো বিপদের মুখে ঠেলে দিচ্ছেন”। গোটা বিষয়টি নিয়ে সমস্যার আশু সমাধান না হলে এবার পথে নামবে কংগ্রেস, বলে তরুন জানান।
সংশোধিত যে ভোটার তালিকা সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে, তাতে ভোটারে নাম আর বাড়ির নম্বর লেখা রয়েছে। নেই উপযুক্ত ঠিকানা। অর্থাৎ, কোনো রকমে ভোটারের নাম টুকু গুঁজে দিয়েই ভোটার তালিকা তৈরী করা হয়েছে। যেমন দুর্গাপুর শহরের ২২ নম্বর ওয়ার্ড সিটি সেন্টারের নন কোম্পানী পাড়ার ভোটার তালিকার একটি পৃষ্ঠায় দেখা যাচ্ছে, ভোটারের নাম- রীনা মণ্ডল, স্বামীর নাম ফটিক চন্দ্র মণ্ডল, বাড়ির নম্বর- ১০৯, এটুকুই। আরেক ভোটার ভারতী ব্যানার্জি, বাড়ির নম্বর- ১৩৫, আবার অসিত বাবুর পুত্র উৎপল ব্যানার্জির বাড়ির নম্বর- ১৩৪, অথচ উৎপল ও ভারতী একই বাড়ির বাসিন্দা। ওই পৃষ্ঠাটি নন কোম্পানী এলাকার নন্দলাল বীথির ভোটার তালিকা। যা চূড়ান্ত বিভ্রান্তি ছড়িয়েছে। একই অবস্থা গোটা পাড়া জুড়েই।
“এ রকম তালিকায় মানুষ, এই পরিস্থিতিতে আরো বেশি আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন”, মন্তব্য সিপিএম নেতা বিনয় চক্রবর্তীর।
‘কেন এমন হল’?
সোমবার নির্বাচন দপ্তর খুলতেই শ’য়ে শ’য়ে মানুষের একই প্রশ্ন। গোটা বিষয়টির গুরুত্ব আঁচ করে ব্যবস্থা নিচ্ছে জেলা প্রশাসনও। দুর্গাপুরের মহকুমা শাসক, অনির্বান কোলে এদিন বলেন, “ভুল যে হয়েইছে, তা বোঝা গিয়েছে। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব নতুন করে ভোটার তালিকা সংশোধন করে, ত্রুটি মুক্ত তালিকা প্রকাশ করার নির্দেশও দিয়েছি সংশ্লিষ্ট দপ্তর কে”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here