গাঁজা ও মাদক কারবারীদের মুক্তাঞ্চলের বিরুদ্ধে দুর্গাপুরের কোক ওভেন থানার পুলিশের জিহাদ

0
572

নিজস্ব সংবাদদাতা, দুর্গাপুরঃ- দুর্গাপুর শিল্পাঞ্চল জুড়ে এখন গাঁজা ও মাদক কারবারিদের মুক্তাঞ্চল হয়ে ওঠার খবর পাওয়া যাচ্ছে। যেহেতু দুর্গাপুর শহর পার্শ্ববর্তী দুটি মুখ্য রাস্তার মাঝখানে , যেমন একদিকে ২ নম্বর জাতীয় সড়ক ও অন্যদিকে রাজ্য সড়ক স্বভাবতই এই পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে বিভিন্ন রাজ্য থেকে এ রাজ্যে গাঁজা ও মাদক কারবারিদের মুক্তাঞ্চল হিসেবে দুর্গাপুরকে বেছে নিয়েছে বলে অভিযোগ। কিন্তু দুর্গাপুর পুলিশের লাগাতার অভিযানে ধরাশায়ী হচ্ছে তাদের এই ষড়যন্ত্র ।

দুর্গাপুর শিল্পাঞ্চলের কোক ওভেন থানা ও তার পুলিশকর্মীরা নিরন্তর জিহাদ ঘোষণা করে রেখেছেন এই অবৈধ গাঁজা ও মাদক পাচারকারীদের বিরুদ্ধে। গত কয়েক মাস আগেই দুর্গাপুরের কোক ওভেন থানা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় এক ব্যক্তিকে। তার কাছ থেকে উদ্ধার হয় প্রায় ৩০ কেজি গাঁজা ও একটি বিলাসবহুল চারচাকা গাড়ি। কোক ওভেন থানার পুলিশের নজরদারি যতই বেড়েছে ততই জালে ধরা পড়েছে একাধিক গাঁজা ও মাদক কারবারি থেকে সরবরাহকারী ব্যক্তিরা। সদাই সজাগ থাকার ফলে আবারো সাফল্যের মুখ দেখলো দুর্গাপুরের কোক ওভেন থানার পুলিশ ।

গতকাল রাত্রে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে কোক ওভেন থানার পুলিশ স্থানীয় সুকুমার নগর এলাকায় হানা দিয়ে অভিজিৎ সরকার নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে। তার কাছ থেকে উদ্ধার হয় ৩১ কেজি ৫০০ গ্রাম গাঁজা। একটি সূত্র মারফত জানা গেছে, ধৃত ব্যক্তি অভিজিৎ সরকার ওরফে ঝন্টু শ্যামপুর হাট এলাকার বাসিন্দা। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন , গতকালই সে উড়িষ্যা থেকে বাসে করে দুর্গাপুরে নিজের বাড়িতে ফিরেছে। উড়িষ্যা থেকে ফেরার সময় তার পরনে ছিল কোট , টাই এবং দুটি ট্রলি ব্যাগ। পুলিশের চোখে ধুলো দিতেই তার এহেন পোশাক বলে মনে করছেন এলাকাবাসী । কোক ওভেন থানার পুলিশ ওই দুটি ট্রলিব্যাগ থেকেই উদ্ধার করে প্রায় ৩১ কেজি গাঁজা । যার আনুমানিক বাজার দর প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ টাকার মত। ধৃত অভিযুক্ত অভিজিৎ সরকারকে বৃহস্পতিবার সাত দিনের পুলিশি হেফাজত চেয়ে আসানসোল কোর্টে পেশ করে কোক ওভেন থানার পুলিশ। এই ঘটনার পর কোক ওভেন থানার পুলিশকে সাধুবাদ জানিয়েছেন শহরবাসী । তাদের নিরন্তর প্রয়াসে মাদক কারবারীদের ধরাশায়ী করবে বলে আশা করেন শিল্পাঞ্চল বাঁশি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here