দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রীকে নৃশংস ভাবে খুন করার প্রতিবাদে মৌন মিছিল কাজড়ায়

0
405

সংবাদদাতা, অন্ডালঃ- নিজের দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রীকে খুন করে আগুন লাগিয়ে দেয়ার ঘটনা ঘটে ২৯ শে জুলাই। এই অভিযোগে গ্রেপ্তার হন দোজবরে স্বামী। ২৯ শে জুলাই মঙ্গলবার বিকেলে ঘটনাটি ঘটেছে কাজোড়া গ্রামের হাজরা পাড়ায় ।মৃতের নাম আইভি হাজরা (৩৭) অভিযুক্ত এর নাম বিক্রম রায়। ঘটনার সূত্রে জানা গেছে, উখড়া গ্রামের সুভাষ পাড়ার বাসিন্দা বিক্রম বাবু খাঁন্দরার সরকারি প্রতিবন্ধী কেন্দ্রের কম্পিউটার প্রশিক্ষকের কাজ করেন। সেখানেই বিবাহিত বিক্রম বাবুর সাথে আইভি দেবীর সম্পর্ক গড়ে ওঠে। উখরায় বিক্রম বাবুর প্রথম পক্ষের স্ত্রী ও বছর দশেকের এক ছেলে থাকে। স্থানীয় একটি হাইস্কুলে বিক্রম বাবুর প্রথম পক্ষের স্ত্রী পার্টটাইম শিক্ষকতা করেন। অন্যদিকে আইভি দেবীর সঙ্গেও তিনি অবৈধ সম্পর্কে জড়ান। মাস আটেক আগে আইভি দেবীকে তিনি বিয়ে করেন বলে মৃতের পরিবারের দাবি। বিক্রম বাবু দ্বিতীয় বিয়ের ব্যাপারটি তার প্রথম পক্ষের স্ত্রীর কাছে গোপন রাখেন। বিয়ের পর আইভি দেবি কাজোড়ায় বাপের বাড়িতে থাকতেন। বিক্রম বাবু প্রায়ই সেখানে আসা-যাওয়া করতেন। অন্যান্য দিনের মতো মঙ্গলবার দুপুরে ও বিক্রম বাবু কাজোরায় আইভি দেবীর বাড়ি যান। সেই সময় আইভি দেবী ছাড়াও বাড়িতে ছিলেন তার ঠাকুমা মায়ারানি হাজরা। সেখানেই ধারাল অস্ত্র দিয়ে বিক্রম বাবু আইভি দেবীর উপর চড়াও হন। বাধা দিতে গিয়ে আহত হন মায়া রানী দেবী। প্রথমে ধারালো অস্ত্র দিয়ে খুন করার পর আইভি দেবীর দেহটি বিক্রম বাবু পেট্রোল ঢেলে জ্বালিয়ে দেন বলে অভিযোগ। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে অন্ডাল থানার পুলিশ। ঠাকুমা মায়ারানি দাবির অভিযোগে ওই দিন সন্ধ্যায় উখরার বাড়ি থেকে বিক্রম বাবুকে পুলিশ আটক করে। জেরাতে বিক্রম বাবু আইভী দেবীকে খুনের কথা স্বীকার করেছেন। এদিকে খুনের ঘটনায় এলাকায় ছড়িয়েছে চাঞ্চল্য ছড়ায়। অভিযুক্তের ফাঁসির দাবি করেন মৃতার বাবা রামদর্শন হাজরা। আজ এলাকার প্রায় শ খানেক মহিলা দোষীর ফাঁসির দাবি চেয়ে কাজড়া এলাকায় একটা মৌন মিছিল করেন। মিছিলে অংশ নেওয়া নন্দিতা দাস ও প্রিয়া হাজরারা খুনি বিক্রমের কঠিন সাজা স্বরূপ ফাঁসি দাবি করেন। তারা বলেন দোষীর এমন দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিক প্রশাসন যাতে এই ধরণের ঘৃণ্য, জঘন্য অপরাধ আর ভবিষ্যতে কেও করতে সাহস না পায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here