প্রসাদে বিষ মিশিয়ে খুন! মথুরাপুরে মৃত দুই

0
430

সংবাদদাতা, কলকাতাঃ- আত্মীয়ের বাড়িতে পুজোর অনুষ্ঠানের প্রসাদ খেয়ে মৃত্যুর মুখে ঢোলে পড়ল মা ও ছেলে। অন্যদিকে মৃত গৃহবধূর স্বামী এবং তার আরও এক ছেলে হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছে। এই মর্মান্তিক ঘটনায় দক্ষিন ২৪ পরগনার মথুরাপুর থানার ভগবতীপুর এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, এদিন মথুরাপুরের ভগবতীপুরের তাজপুরে রণজিৎ কয়ালের বাড়টিতে লক্ষী পুজোর অনুষ্ঠান ছিল। রণজিৎ বাবু তার দাদা বিশ্বনাথ কয়াল এবং তার পুরো পরিবারকে এই পুজোয় নিমন্ত্রন করে। বিশ্বনাথ বাবু তার স্ত্রী এবং সন্তানদের নিয়ে ভাইয়ের বাড়িতে এসেছিলেন। পুজোর শেষ পর্বে ঠোঙায় মুড়ে রাখা ছিল পুজোর প্রসাদ এবং মাখা সন্দেশ। যথারীতি ওই মুড়ানো ঠোঙা থেকেই পরিবারের প্রত্যেক সদস্যদের প্রসাদ খেতে দেওয়া হয়। দুপুরের আহার ও সবাই একসঙ্গে খান। কিন্তু বিকেল গড়াতেই অসুস্থ হয়ে পড়েন বিশ্বনাথ বাবু, তার স্ত্রী মঙ্গলা দেবী এবং তার দুই সন্তান নবদ্বীপ এবং সোমনাথ। সেই সময় তড়িঘড়ি করে অসুস্থ চার জনকে মথুরাপুর গ্রামীন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু রাতের দিকে প্রত্যেকের শারিরীক অবস্থার প্রচন্ড অবনতি ঘটতে থাকে। এদিন ভোরে নবদ্বীপ কয়ালের মৃত্যু ঘটে। অন্যদিকে নবদ্বীপের মা, বাবা, ও ভাইকে অত্যন্ত আশঙ্কাজনক অবস্থায় ডায়মন্ডহারবার জেলা হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। কিন্তু সেখানেই মারা যান মঙ্গলা দেবী। বর্তমানে বিশ্বজিৎ বাবু এবং তার ছোট ছেলে ডায়মন্ড হারবার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ডায়মন্ড হারবার মেডিক্যাল ও ভাইস-প্রিন্সিপাল ডাঃ রামপ্রসাদ রায় বলেন, খাদ্যে বিষক্রিয়ার জেরে এই মৃত্যু ঘটেছে। মৃত এবং অসুস্থদের শরীরে বিষের মাত্রা এতটাই বেশি যে তাতে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন হাসপাতালের চিকিৎসকরা। ইতিমধ্যেই পুলিশ গোটা ঘটনার তদন্তে নেমেছে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন। রণজিৎ কয়াল এবং বিশ্বনাথ কয়াল এরা দুই ভাই। বেশ কিছুদিন ধরেই এদের মধ্যে পারিবারিক বিবাদ চলছিল। বেশ কিছুদি দুই পরিবারের মধ্যে কথাবার্তা ও প্রায় বন্ধ হয়ে গেছিল। কিন্তু হঠাৎ কি কারনে রণজিৎ বাবু লক্ষী পূজোর প্রসাদ খেতে তার দাদা বিশ্বনাথ বাবু এবং তার পুরো পরিবারকে আমন্ত্রন করেছিল তা নিয়ে গ্রাম বাসীদের মধ্যে যথেষ্ট সন্দেহ দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যেই পুলিশ রণজিৎ এবং তার স্ত্রী তনয়াকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here