মানবতার নজির গড়লো কাঁকসা থানার পুলিশ, পায়ে হেঁটে যাচ্ছিল কর্ণাটকের ৩০ জন মানুষ, থাকা খাবার ব্যবস্থা

0
1053

সংবাদদাতা, পানাগরঃ- সারা রাজ্য যখন করোনাভাইরাস এর আতঙ্কে গৃহবন্দী সেই সময় দক্ষিণ ভারতের কর্ণাটক রাজ্যের তিরিশ জন মানুষ আটকে পড়েছিলেন কৃষ্ণনগরে। বাড়ি ফেরার কোন উপায় না পেয়ে এই কদিনে তারা হতাশ হয়ে পড়েছিলেন। পরে তারা নিজেদের উদ্যোগে শুরু করেন পায়ে হেঁটে কর্নাটকের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। কৃষ্ণনগর থেকে তারা যখন কাঁকসা হয় দুর্গাপুরের বাস কোপা টোল প্লাজার সামনে এসে পৌঁছায় , তখন সাধারণ মানুষ তাদেরকে দেখে জিজ্ঞাসা করেন তারা কোথায় যাবেন। উত্তরে তারা জানান কোনো যানবাহন না পেয়ে তারা পায়ে হেঁটেই কর্নাটকের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন। শুনে অবাক লাগলেও এই মানুষগুলি পায়ে হেঁটে সারাদিন নিজেদের স্টিলের তৈরি বাসনপত্র বিক্রি করেন কৃষ্ণনগর শহর জুড়ে। তাই তারা মনোবলের ওপর ভর করেই হেঁটে পৌঁছে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বেরিয়ে পড়েন কৃষ্ণনগর থেকে কর্নাটকের দিকে। তাদের সঙ্গে রয়েছেন বেশ কয়েকজন মহিলা সদস্য। সাধারণ মানুষের কাছে অভিযোগ পেয়ে তড়িঘড়ি কাঁকসা থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। আগে তাদের পানাগর প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসা করা হয়। বিস্তারিত জানার পর তাদেরকে গাড়িতে করে পানাগড়ের গুরুদুয়াররতে থাকা-খাওয়ার বন্দোবস্ত করে দেন কাঁকসা থানার পুলিশ। কাঁকসা থানার পুলিশের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন সাধারণ মানুষ পুলিশ যে মানুষের জন্য কাজ করে তার উজ্জ্বল উদাহরণ কাঁকসা থানার পুলিশ। এছাড়াও কাঁকসা থানা পুলিশের পক্ষ থেকে সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, খাবারের বন্দোবস্ত করা হয়েছে বিভিন্ন জায়গায় অভুক্ত মানুষদের জন্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here