একদিনে ১৮ করোনা রোগীকে সুস্থ করে রাজ্যে নয়া রেকর্ড গড়ল সনোকা, আবার ভর্তি ও হল একদিনে বাঁকুড়ার ১২ জন

0
2416

বিশেষ সংবাদদাতা, দুর্গাপুর:- একদিনে ১৮ জন করোনা আক্রান্ত রোগীকে সুস্থ করে বাড়ী ফেরৎ পাঠিয়ে রাজ্যের মধ্যে নয়া নজির গড়ল দুর্গাপুরের সনোকা কোভিড হাসপাতাল। এ ঘটনায় সাধারন মানুষের মধ্যে “করনা কে যে জয় করা যায়, এ ধারনাই প্রতিষ্ঠিত হবে”, বলে মন্তব্য অই হাসপাতালেরই বরিষ্ঠ চিকিৎসকদের একাংশের।
বুধবারই একসাথে ছুটি হচ্ছে ১৮ জন সুস্থ হয়ে ওঠা করনা রোগীর। তারা বিভিন্ন জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকদের মাধ্যমে দুর্গাপুরের মলানদিঘির সনোকা কোভিড হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। রাজ্যের দক্ষিনবঙ্গেঁর ৭ টি জেলার জন্য নির্ধারিত কোভিড হাসপাতালই হল সনোকা হাসপাতাল। পাশাপাশি ১০ টি জেলার জন্য কোভিড পরীক্ষার কেন্দ্রও এটি। এ পর্যন্ত দেড় ডজন রোগীর একসাথে ছুটি হওয়ার ঘটনা না ঘটলেও, আড়াই ডজন রোগীকে সুস্থ করে বাড়ী পাঠিয়েছে সনোকা। রাজ্যে এখন পর্যন্ত মোট করোনা আক্রান্ত রোগী ৪১০০ আর গত ২৪ ঘন্টায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে ২৫০-র বেশি।
এ দিকে, বুধবারই বাঁকুড়া মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকের সুপারিশে ১২ জন নতুন করোনা রোগীকে পাঠানো হয় সনোকা হাসপাতালে। জানা গেছে, তারা মুম্বই এর থেকে ফিরে আসা পরিযায়ী শ্রমিক। গতকাল মুম্বই থেকে ফেরার পর তাদের কোভিড পরীক্ষা হয়। সনোকা হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, একদিনে একসাথে ১২ জন কোভিড ১৯ রোগী আসার বিষয়টি ও একটি রেকর্ড সংখ্যক ভর্তি।

উল্লেখ্য কিছু দিন আগেই অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সাইন্সেস এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল দুর্গাপুর শিল্পাঞ্চলে একমাত্র কোভিড-১৯ হাসপাতাল, সনোকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পরিকাঠামো এবং তাদের হাসপাতালে উন্নত মানের পরিষেবাতে ও উল্লেখযোগ্য করোনা আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসায় তারা সন্তুষ্ট। তাই অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সাইন্সেসর কর্তারা একটি চিঠির মাধ্যমে জানিয়েছিলেন এবার থেকে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের মেডিকেল টেস্ট করতে পারবেন তাদের হাসপাতালে। টেস্ট সেন্টার হিসেবে অনুমোদন পেয়েছিলন এই হাসপাতাল। কেন্দ্রীয় সরকার দ্বারা শুধুমাত্র পশ্চিমবঙ্গের একমাত্র সনোকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল যেখানে করোনা আক্রান্ত রোগীর নমুনা তিনটি পদ্ধতি দ্বারা বিচার করা হয় বা টেস্টিং করা হয়। গুজবে কান দেবেন না। সুস্থ থাকুন, বাড়িতে থাকুন,পশ্চিমবঙ্গ সরকার আছে সর্বদা পশ্চিমবঙ্গবাসীর সাথে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here