সাংবাদিক হত্যার বিরুদ্ধে গর্জে উঠলো গোটা সাংবাদিক মহল

0
315

সন্দীপ চক্রবর্তী , পশ্চিম বর্ধমান :- বারবার তলোয়ারের ধারে কেটে ফেলার চেষ্টা করা হয় কলম ও ক্যামেরা। বারেবারে বিভিন্নভাবে প্রতিবাদে সামিল হয় বিভিন্ন মহলের সাংবাদিকরা। এবার বিহারের তরুন সাংবাদিক বুদ্ধিনাথ ঝাকে বাড়ির সামনে থেকে অপহরণ করে পুড়িয়ে মারা এছাড়াও সারা দেশের বিভিন্ন প্রান্তে কাজ করা সাংবাদিকদের উপর হামলার প্রতিবাদে দিকে দিকে গর্জে উঠল প্রিন্ট, ইলেক্ট্রনিক পাশাপাশি ডিজিটাল মিডিয়ার সাংবাদিকরাও। বুদ্ধিনাথের অপহরণ ও হত্যার খবর পাওয়ার সাথে সাথে “বেঙ্গল ডিজিটাল মিডিয়া ফাউন্ডেশন” নিজেদের ডিজিটাল ফ্ল্যাটফর্মে এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করে। পাশাপাশি ফাউন্ডেশনের সভাপতি মনোজ কুমার সিংহ সোশাল মিডিয়ায় প্রতিবাদের পাশাপাশি রাস্তায় নেমে মোমবাতি হাতে মৌন মিছিলের কথাও জানান। এছাড়াও আজ ন্যাশনাল প্রেস ডে এর দিন “পশ্চিম বর্ধমান জেলা প্রেস ক্লাব” ও “প্রেস ক্লাব অফ জামুড়িয়া”যৌথভাবে মংগলবার আসানসোলের বিএনআর এ রবীন্দ্রভবনের সামনে একটি পথসভা করে আগত সমস্ত সাংবাদিকদের একটি সাক্ষরিত স্মারকলিপি আসানসোল জেলা শাসকের হাতে তুলে দেন। এছাড়াও উনার মাধ্যমে সেই কপি ভারতবর্ষের রাষ্ট্রপতি ও বিহারের রাজ্যপালকেও দেওয়ার ব্যাবস্থা করা হয়।

প্রসঙ্গত, ইদানীং বিহারের মধুবনি জেলার ২২ বছরের এক তরুণ সাংবাদিক বুদ্ধিনাথ ঝা ওরফে অবিনাশকে অপহরণ করে নির্মমভাবে খুন করা হয়। বিহারের মাধুবনিতে অবৈধভাবে চলা বেসরকারি ডাইগনেস্টিক সেন্টার ও নার্সিংহোমগুলির কারবার সবার সামনে ফাঁস করেছিলেন বুদ্ধিনাথ। আবার দ্বিতীয় বার ওদের কেলেঙ্কারি প্রকাশ করার কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই অপরাধীরা তাকে অপহরণ করে জীবন্ত পুড়িয়ে হত্যা করে এবং সত্যের কণ্ঠরোধ করার চেষ্টা করে। সাংবাদিক বুদ্ধিনাথ ঝাকে নৃশংসভাবে হত্যার ঘটনায় সারাদেশের সাথে পশ্চিম বর্ধমান জেলার সাংবাদিকরাও মঙ্গলবার ব্যাপক আন্দোলন করেন।

আসানসোলের বিশিষ্ট সাংবাদিক বিশ্বদেব ভট্টাচার্য এদিন বলেন চলতি মাসের ৯ তারিখ অপহৃত হওয়া তরুণ সাংবাদিকের পোড়া দেহ গত শুক্রবার ১২ তারিখ পাওয়া গেলেও এখনো পর্যন্ত বিহারের সরকার কোন নির্দিষ্ট টিম তৈরি করে এ ব্যাপারে তদন্তের কাজ শুরু করেনি। তিনি বলেন ভারতবর্ষের সুপ্রিম কোর্ট বা বিহারের হাইকোর্টের কোন সিটিং জজকে দিয়ে একটা সিট গঠন করা হোক এবং অতি শীঘ্রই এর তদন্ত শুরু হোক। এর পাশাপাশি মৃত সাংবাদিকের পরিবারের ক্ষতিপূরণের দাবি জানানোর কথাও বলেন তিনি। তিনি উদাহরণস্বরূপ বলেন এই রাজ্যে করনায় মৃত এক সাংবাদিকের পরিবারকে কাজের ব্যবস্থা করে দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার , তাহলে বিহারে এই নিশংস ভাবে খুন হওয়া সাংবাদিকের পরিবারের দিকে কেন নজর দেবেনা সেখানকার সরকার। পাশাপাশি ত্রিপুরাতে দুই মহিলা সাংবাদিককে বেআইনিভাবে গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা করেন তিনি এবং বেশকিছুদিন আগে উত্তরপ্রদেশের হাতরাসের ঘটনায় যেভাবে সাংবাদিকদেরকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছিল এবং তাদের উপর অত্যাচার করা হয়েছিল তারও তীব্র নিন্দা জানান তিনি আজকের এই মঞ্চ থেকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here