মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে, শয়ে শয়ে আবাসিকদের সঙ্গে প্রতারণা করে পুকুর ভরাটকে ঘিরে ব্যাপক উত্তেজনা বর্ধমানে

0
519

সংবাদদাতা, বর্ধমান:- বর্ধমান শহরের রেনেসাঁ টাউনশিপ এলাকায় অবৈধভাবে জলাশয় বুজিয়ে সেখানে বাড়ি করার চেষ্টার ঘটনায় ব্যাপক উত্তেজনা দেখা দিল। একদিকে যখন খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় জলাশয় বোজানোর ঘটনায় কড়া হাতে মোকাবিলা করার নির্দেশ দিয়েছেন, এমনকি রাজ্য জুড়ে জল ধরো জল ভরোর মত জনপ্রিয় প্রকল্প গ্রহণ করেছেন, সেখানে সরকারী নিয়মকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে রেনেসাঁ কর্তৃপক্ষ জলাশয় বুজিয়ে বাড়ি করার উদ্যোগ নেওয়ায় পথে নামলেন রেনেসাঁ টাউনশিপের বাসিন্দারা। শুক্রবার সকাল থেকেই তাঁরা পুকুর বোজানোর কাজ বন্ধ করে আন্দোলন শুরু করে দিলেন। এমনকি এদিন রীতিমত বচসাও বাধে রেনেসাঁর এক আধিকারিকের সঙ্গে। এই সময় কর্তব্যরত সাংবাদিকরা উত্তপ্ত বচসার ছবি তুলতে গেলে তাঁদের ঠেলে ফেলে দেওয়া এবং ক্যামেরা ভেঙে দেবারও চেষ্টা করেন রেনেসাঁর ওই আধিকারিক। এদিন রেনেসাঁ টাউনশিপের আবাসিকদের সংগঠন বর্ধমান রেনেসাঁ টাউনশিপ এলোটিস এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি লালবিহারী ব্যানার্জ্জী জানিয়েছেন, কার্যত তাঁদের সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে। তাঁরা রীতিমত বঞ্চিত হয়েছেন এই টাউনশিপের বাড়ি কিনে। তিনি জানিয়েছেন, যখন তাঁরা এখানে বাংলো, ফ্ল্যাট কিনতে আসেন তখন তাঁদের অনেক কিছুরই স্বপ্ন দেখানো হয়েছিল। তাঁদের বলা হয়েছিল এই টাউনশিপের মধ্যে থাকা বিশাল জলাশয়কে ঘিরে সৌন্দ্যর্যায়ন ঘটানো হবে। বলা হয়েছিল এই টাউনশিপের মধ্যে থাকবে একটি পুলিশ চৌকিও। কিন্তু বাস্তবে কোনো কিছুই হয়নি। উল্টে গত কয়েকদিন ধরে তাঁরা লক্ষ্য করছেন ওই জলাশয়ের জলকে তুলে ফেলে সেখানে পুকুর ভরাট করে বাড়ি তৈরীর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এদিন আন্দোলনে নামা আবাসিক তনয়া ঘোষ পাল জানিয়েছেন, তাঁদের সঙ্গে চুক্তি মোতাবেক অনেক সুযোগ সুবিধাই তাঁদের দেওয়া হয়নি। তিনি জানিয়েছেন, তাঁদের চুক্তির সময় যে সমস্ত জিনিস দেখানো হয়েছিল, তার মধ্যে ছিল পরিকল্পিত একটি বনসৃজন, একটা সুন্দর জলাশয়ও। কিন্তু বনসৃজন তো দূরের কথা এই জায়গায় যে সমস্ত গাছ ছিল সেগুলিও কেটে ফেলা হয়েছে। পাশাপাশি জলাশয়টিকে ভরাট করে ফেলা হচ্ছে। আর তাই তাঁরা প্রতিবাদ করছেন। তিনি জানিয়েছেন, যেখানে মুখ‌্যমন্ত্রী জলাশয়কে ভরাট না করার নির্দেশ দিয়েছেন, সেখানে কোন্ ক্ষমতাবলে রেনেসাঁ কর্তৃপক্ষ এই জলাশয়কে ভরাট করছেন সেটাই তাঁদের কাছে রহস্যের মনে হয়েছে। তাই তাঁরা আন্দোলনে নেমেছেন। এদিকে, এদিন আবাসিকদের এই বিক্ষোভের জেরে পুকুর ভরাটের কাজ বন্ধ হয়ে যায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন রেনেসাঁর এক প্রোজেক্ট ম্যানেজার দেবাশীষ চক্রবর্তী। কর্তব্যরত সাংবাদিকরা পুকুর ভরাট নিয়ে তাঁকে জিজ্ঞাসা করতেই তিনি ক্ষীপ্ত হয়ে সাংবাদিকদের ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দেন। রীতিমত ক্ষীপ্ত হয়ে সাংবাদিকদের ওপর আক্রমণও চালান তিনি। এই ঘটনায় সঙ্গে সঙ্গে আবাসিকরা ছুটে আসলে তিনি পালিয়ে যান। যদিও এব্যাপারে তিনি কোনো কথাই বলেননি। গোটা ঘটনায় তীব্র আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে বর্ধমানের বিখ্যাত টাউনশিপকে ঘিরে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here