মানা যাচ্ছে না অতর্কিত মৃত্যু, শহীদ স্মরণে বিক্ষোভ ফুঁসে বেরোচ্ছে দেশের

0
159

এই বাংলায় ওয়েব ডেস্কঃ- ২০ জন সেনা শহিদের ঘটনা সারা দেশের গায়ে বানিয়েছে জ্বলন্ত এক দগদগে ঘা। লাদাখের এই চিনা হামলার যোগ্য জবাব দেওয়ার মহড়া ভারতীয়রা প্রকাশ্যেই চালু করে দিয়েছে পুরো দেশ জুড়ে। ক্ষোভের আগুন আছড়েছে লাল মাটির জেলা বাঁকুড়াতেও ঘোষণা করেছে বিক্ষোভ। তীব্র প্রতিবাদে এই বাঁকুড়া শহরের প্রাণ কেন্দ্র মাচানতলায় বৃহস্পতিবার বিকেলেই চিনা রাষ্ট্রপতি শি জিন পিং এর কুশ পুত্তলিকা দাহ করলেন বিজেপির মহিলা মোর্চার কর্মীরা ও চীনা দ্রব্য বয়কটের আহ্বান দিলেন তাঁরা । এছাড়া সেদিন চিনা রাষ্ট্রপতি ‘শি জিন পিং ওয়াক্ থুঃ’ বলেও শ্লোগান দেন তাঁরা। প্রসঙ্গত, গত সোমবার লাদাখের গানওয়ান ভ্যালিতে ভারত-চীন দুই দেশের সেনাবাহিনী মুখোমুখি হয়। ভারতের কুড়ি জন সেনা শহীদ হন বলে খবর মেলে।

ও চীনের বেশ কিছু সেনা নিহত হন। ঘটনার পর থেকেই দেশ জুড়ে চীন বিরোধী আন্দোলন তীব্র হতে থাকে। বিজেপি মহিলা মোর্চার হাত ধরে যার রেশ এসে পৌঁছালো বাঁকুড়াতেও। বিজেপি মহিলা মোর্চা নেত্রী মনিকা দত্ত শহীদ বীর সেনা জওয়ানদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, আমরা ভারতীয়রা শান্তিপ্রিয় হতে পারি। কিন্তু কেউ আক্রমণ করলে ছেড়ে কথা বলা হবেনা। যোগ্য জবাব দেওয়ার জন্য আমরা প্রস্তুত বলেও তিনি জানান। শহীদ স্মরণ-এ আজকে একটি প্রতীকী অবস্থান বিক্ষোভ করে বাঁকুড়া জেলার সারেঙ্গা ব্লকের পন্ডিত রঘুনাথ মুর্মু স্মৃতি মহাবিদ্যালয়ের অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ। এই বিক্ষোভ কর্মসূচি কলেজ থেকে পি মোড় পর্যন্ত মিছিল করে মূলত চীনের দ্রব্য বয়কটের প্রতিবাদে। এদিন কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে তাদের একটাই বার্তা ছিল যে, সরকারিভাবে বয়কট হোক চিনা সামগ্রী।জনসচেতন করতে সেদিন দাহ করা হল চিনা পতাকা ও চীনা প্রেসিডেন্টের কুশপুতুল।

অন্যদিকে, শুক্রবার ভোর বেলায় পানাগড় সেনা ছাউনি থেকে শহীদ রাজেশ ওরাং এর মৃতদেহ নিয়ে বীরভূমের উদ্দেশ্যে রওনা দেন সেনার জওয়ানরা। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা নাগাদ পানাগড় বায়ু সেনা ছাউনিতে শহীদের মৃতদেহ হেলিকপ্টারে নামানোর পর পানাগড় সেনা ছাউনিতে রাখা হয় মৃতদেহ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here