বঁটি দিয়ে মা – বাবাকে কোপানো বড় ছেলের ৪ দিনের পুলিশ হেপাজত

0
508

সংবাদদাতা, বিষ্ণুপুরঃ- সম্পত্তির লোভে মা – বাবাকে কোপানোর দায়ে আটক বড় ছেলে প্রশান্ত ভৌমিককে অবশেষে সরকারি ভাবে গেপ্তার করল জেলা পুলিশ। তার বিরুদ্ধে খুনের চেষ্টার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। বিষ্ণুপুর মহকুমা আদালত তাকে চারদিনের জন্য পুলিশ হেপাজতে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
সম্পত্তির লোভে বৃদ্ধ মা – বাবা বীনারানী ভৌমিক ও প্রফুল্ল ভৌমিকের ওপর একটি বঁটি নিয়ে চড়াও হয় বড় ছেলে প্রশান্ত। শনিবার সকালে। বিষ্ণুপুরের ইন্দাস থানা এলাকার বামনিয়া গ্রামে। হিংস্র ছেলের বঁটির কোপে কব্জি থেকে কাটা পড়ে বীনারানির দুই হাত। বৃদ্ধ প্রফুল্ল’র বুকে, গলায় হয় গভীর ক্ষত। পাড়া পড়শির সাহায্যে পুলিশ বৃদ্ধ ওই দম্পতিকে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি করে। সেখান থেকে আশংকাজনক অবস্থায় তাদেরকে সোমবার সকালে কলকাতার এস. এস. কে. এম. হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়।
ওদিকে, ঘটনার দিনই ইন্দাস বাজারের একটি দোকানে লুকিয়ে থাকা প্রশান্তকে আটক করে পুলিশ। রবিবার সন্ধ্যায় দম্পতির ছোট ছেলে পরিতোষ ভৌমিকের স্ত্রী মিনুর অভিযোগের ভিত্তিতে প্রশান্তকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এই মিনুকে পরিতোষ বিয়ে করার পরিপ্রেক্ষিতেই প্রশান্ত’র সাথে গোলমাল বাঁধে পরিবারের। ভিন জাতের মেয়ে মিনুকে পুত্রবধূ বলে গোড়ায় মেনে নেননি বৃদ্ধ দম্পতিও। কিন্তু, ‘ অন্য জাতের মেয়েকে বিয়ে করেছে পরিতোষ, তাই তাকে সম্পত্তির কোনো ভাগ দেওয়া যাবে না’ বলে দাবী তোলে প্রশান্ত। পরে, প্রশান্তর দাবী খারিজ করে দুই ছেলেকে সম্পত্তির সমান অংশীদার করতে চান প্রফুল্ল – বীনারানী। আর তাতেই রাগে অগ্নিশর্মা বড় ছেলে প্রশান্ত বঁটি দিয়ে কুপিয়ে খতম করে দিতে চায় বৃদ্ধ মা – বাবাকেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here