রাজ্যে লোকসভা ভোট প্রচারের হালহকিকৎ

0
516

নিউজ ডেস্ক, এই বাংলায়ঃ লোকসভা ভোটের প্রথম দফার ভোট শেষ। এবার অপেক্ষা দ্বিতীয় দফার ভোট। তবে এই রাজ্যে লোকসভা ভোটের এখনও কয়েকটা দিন বাকি। তাই বিভিন্ন জেলার লোকসভা কেন্দ্রগুলিতে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলির প্রচারাভিযান অব্যহত। শুধু ভোট প্রচার বললে একটু ভুল বলা হবে। কারণ, ভোট প্রচারের শুরু থেকে এখনও পর্যন্ত রাজ্যের বিভিন্ন কেন্দ্রগুলিতে শাসক ও বিরোধী দলের মধ্যে টানাপোড়েন অব্যহত। কখনও বাঁকুড়া, কখনও দুর্গাপুর, কখনও আসানসোল বা অন্ডালেও ভোট প্রচার নিয়ে শাসক-বিরোধী দলের মধ্যে অভিজগ-পাল্টা অভিযোগের পালা চলছে। এরই মধ্যে ফের একবার বিজেপি প্রার্থীর দেওয়াল লিখন মুছে দেওয়ার অভিযোগ উঠল বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্রের বাঁকুড়া জেলার বড়জোড়া থানার মালিয়ারা এলাকায়। অভিযোগ, বৃহস্পতিবার রাতে কেউ বা কারা বিজেপি প্রার্থী সৌমিত্র খাঁর পোস্টার ছিঁড়ে দেওয়ার পাশাপাশি সৌমিত্র খাঁ-র সমর্থনে দেওয়াল লিখন মুছে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে শাসকদলের বিরুদ্ধে। ঘটনায় শাসকদলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করে সৌমিত্র খাঁ-র সমর্থন প্রচারে কার্যে নামা তাঁর স্ত্রী সুজাতা খাঁ জানান, দিনের পর দিন পোস্টার ছিঁড়ে, দেওয়াল লিখনে কাদা লেপে দেওয়ার মতো ঘটনা ঘটছে। শুধু তাই নয়, যেসমস্ত সাধারণ মানুষের বাড়ির দেওয়ালে বিজেপির দেওয়াল লিখন করা হয়েছে তাদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগও তুলেছেন তিনি। যদিও সমস্ত অভিযোগই অস্বীকার করেছেন তৃণমূল নেতা অলোক মুখার্জী। অন্যদিকে বিনা হেলমেটে বাঁকুড়া মেজিয়া ব্লকের অর্ধগ্রাম অঞ্চলে বাইক র‍্যালি করে প্রচারের অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে। বিজেপির তরফে এই অভিযোগ নিয়ে সরাসরি নির্বাচন কমিশনে যাওয়ার হুঁশিয়ারিও দেওয়া হয়েছে। বিজেপির বক্তব্য, যেখানে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো যখন সেফ ড্রাইভ, সেভ লাইফের প্রচার চালাচ্ছেন তখন তাঁরই দলের প্রার্থী ভোট প্রচারে বিনা হেলমেটে এলাকায় বাইক র‍্যালি করছে। এবিষয়ে প্রার্থী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের সাফাই, র‍্যালিতে বিনা হেলমেটে বাইক চালানোয় মানুষকে নিষেধ করাই হয়েছিল, কিন্তু মানুষ আনন্দে উন্মাদনায় বিনা হেলমেটেই বাইক র‍্যালিতে যোগ দিয়েছে। ঘটনায় মেজিয়ার বিজেপি মণ্ডল সভাপতি মিঠুন পান্ডে শাসকদলের প্রতি পুলিশ প্রশাসনের পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ তুলে জানিয়েছেন, এই র‍্যালি যদি বিজেপির তরফে করা হত তাহলে তাদের অনুমতি দেওয়া হত না। শাসকদলের আইনভঙ্গের বিরোধিতায় নির্বাচন কমিশনের কাছে লিখিত অভিযোগ জানানোর কথা জানিয়েছেন তিনি। একদিকে বাঁকুড়া জেলায় যখন তৃণমূল ও বিজেপির প্রচার পর্ব নিয়ে অভিযোগ পাল্টা অভিযোগ জানাচ্ছে তখন অন্ডালের কাজোরা ও হরিশপুর এলাকায় প্রচারে এসে তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থকদের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়লেন আসানসোলের বিজেপি প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয় ও বিজেপি কর্মী-সমর্থকেরা। বৃহস্পতিবার অন্ডালের কাজোরায় স্থানীয়দের অভাব-অভিযোগের মুখে পড়েন বাবুল সুপ্রিয়। যদিও বাবুল সুপ্রিয় জানান, কেন্দ্রের তরফে এলাকার মানুষের উন্নয়নের জন্য যথেষ্ট অর্থ বরাদ্দ হলেও রাজ্য সরকার গরীব মানুষের কাছে সেই উন্নয়ন পৌছাচ্ছে না। শুধু তাই নয়, আসানসোলে তৃনমূলের হয়ে ভোটে দাঁড়ানো তারকা প্রার্থী মুনমুন সেনকে কটাক্ষ করে জানান, মুনমুন সেনের মা মহান অভিনেত্রী সুচিত্রা সেন। কিন্তু তিনি আজ বেঁচে থাকলে কষ্ট পেতেন এই দেখে যে মেয়ে যাদের হয়ে ভোট চাইছেন তারা লোহা ও কয়লা চোর। এভাবেই তৃণমূল কংগ্রেস তথা মুনমুন সেনকে কটাক্ষ করেন তিনি। যদিও এত সব বিতর্কের মাঝে সুপ্রিম রায়ে অবশেষে স্বস্তিতে বিষ্ণুপুরের বিজেপি প্রার্থী সৌমিত্র খাঁ। সুপ্রিম কোর্টের তরফে তাঁকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, শুধুমাত্র মনোনয়ন জমা দেওয়ার জন্য আগামী ১৬ই এপ্রিল বিষ্ণুপুরে প্রবেশে ছাড় দেওয়া হয়েছে সৌমিত্র খাঁকে। কিন্তু কবে থেকে তিনি জেলায় প্রচার শুরু করতে পারবেন তা তাঁকে কলকাতা হাইকোর্টে ফের আবেদন করে হাইকোর্টের রায় মতো চলতে হবে। এদিকে শুক্রবার থেকে বর্ধমান-দুর্গাপুর কেন্দ্রে প্রথম দিনের ভোট প্রচারে নামলেন বিজেপি প্রার্থী সুরিন্দর সিং আলুওয়ালিয়া। এদিন দুর্গাপুর আদালতের বার অ্যাসোসিয়েনে আইনজীবীদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করে সগরভাঙ্গায় কর্মীসভার উদ্দেশ্য রওনা দেন তিনি।