নাম জপ আর ভগবানের নামে বিশ্বাস রাখার মধ্যে প্রভেদ কতখানি শুনুন সেই ধর্মীয় গল্প

0
589

সঙ্গীতা চ্যাটার্জী (চৌধুরী),বহরমপুরঃ– গীতায় ভগবান বলেছেন, তাঁকে পেতে হলে কেবল এবং কেবলমাত্র তাঁরই শরণাপন্ন হতে হবে। তাঁর প্রতি বিশ্বাস রাখতে হবে দৃঢ় করে। একজন ভক্তের বিশ্বাস হবে এমন- “আমি ভগবানের নাম করি আমার ভয় কীসের? হরি যদি রাখেন তাহলে কে মারবেন আর হরি যদি মারেন তাহলে এই সমগ্র জগৎ সংসারের মানুষ একত্রিত হয়েও আমাকে বাঁচাতে পারবেন না! তাই সমস্ত শঙ্কা ভয় ভুলে আমার একমাত্র ভগবান শ্রীহরির শরণাপন্ন হওয়া উচিত কারণ তিনিই আমার গতি।

ভগবানের নাম জপার সাথে সাথে সেই নামের প্রতি তীব্র বিশ্বাস রাখতে হবে। সেই নামের পবিত্রতার ওপর এবং সেই নামের সর্বব্যাপী শক্তির উপর বিশ্বাস রাখতে হবে তবেই ভগবানের কৃপা লাভ হবে। এ প্রসঙ্গে একটি প্রচলিত গল্প আছে, যেটি শুনলে আপনারা বুঝতে পারবেন দিনরাত নাম জপ করে সাধনা করা আর একনামে বিশ্বাস রাখার মধ্যে কতখানি ফারাক!

এক গোয়ালিনী এক সাধুর আশ্রমে রোজ দুধ নিতে আসতো দেরী করে। একদিন সাধু তাকে কৌতুহলবশত জিজ্ঞাসা করলেন, কেন প্রতিদিন দেরী হয় তোমার? উত্তরে গোয়ালিনী বললেন, নদী পার হতে এবং নৌকার জন্য দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। তাই রোজ দেরী হয়। সাধু বললেন, “আজ থেকে তুমি হরিনাম করে দেখবে নদী হেঁটে হেঁটে পার হতে পারবে তোমার আর নৌকার প্রয়োজন হবে না। তিনি বললেন,“ এ ভব সাগর হবে বালুচর, হাটিয়া হইবি পার, হরিনাম কর সার।”

পরদিন থেকে সত্যি সত্যি গোয়ালিনী হরিনাম করে হেঁটে হেঁটে নদী পার হয়ে যথাসময়ে আশ্রমে দুধ দিয়ে যেতে লাগলেন। একদিন সাধু বললেন, কৈ এখন তো আর তোমার দুধ দিতে দেরী হয় না? গোয়ালিনী উত্তর দিলেন,“ কেন আপনি যে হরিনাম দিয়েছেন তা জপ করতে করতে নদী পার হয়ে যাই।নৌকার জন্য দাঁড়িয়ে থাকতে হয় না।” সাধু ভাবলেন, গোয়ালিনী মাত্র কয়েকদিন হরিনাম জপ করেই যদি নদী হেঁটে হেঁটে পার হয়ে যেতে পারে,তাহলে আমি বহু বছর ধরে হরিনাম করছি,আমি তারচেয়ে বেশী শক্তিশালী ও শুদ্ধভক্ত,আমিও অনায়াসে নদী পার হয়ে যাব।তাই পরীক্ষা করার জন্য গোয়ালিনীর সাথে নদী পার হতে গেলেন। গোয়ালিনী হরিনাম করতে করতে নদী পার হয়ে ওপার থেকে সাধুকে ডাকছে, গুরুদেব আসুন। গুরুদেব নদীতে নামছেন এবং তার পা জলে ডুবে যাচ্ছে আর তিনি একটু একটু করে ধুতি উপরে তুলছেন।তখন গোয়ালিনী বলছে,গুরুদেব আপনি হরিনাম করবেন আবার কাপড়ও তুলবেন, তাহলে কীভাবে নদী পার হবেন। তেমনি আমরাও যদি সাধুবাবার মত হরিনামের প্রতি বিশ্বাস না রাখি তাহলে আমরা কীভাবেই বা বিপদ মুক্ত হবো? আর কীভাবেই বা সংসারে থেকে শান্তি লাভ করবো? আর কীভাবেই বা অন্তিমে ভবসাগর পার হয়ে গোবিন্দের চরণ লাভ করবো?

তাই বিশ্বাস দৃঢ় রাখুন গোবিন্দের প্রতি, নিজেকে মনে মনে গোবিন্দের চরণে সমর্পণ করুন আর এক ভক্তের মতো বিশ্বাস রাখুন, আপনার জীবনে আসা সমস্তকিছুই শ্রী হরির ইচ্ছাই হয়,কারণ ভগবানের ইচ্ছা ছাড়া গাছের একটি পাতা ও নড়ে না‌ তাই তাঁর চরণে শরণ না নিলে যেমন আপনি শান্তি পাবেন না, তেমনি তাঁর কৃপা ছাড়া আপনি ভবসাগরও উত্তীর্ণ হতে পারবেন না। তাই প্রেমানন্দে বাহু তুলে বলুন,“ হরে কৃষ্ণ হরে কৃষ্ণ কৃষ্ণ কৃষ্ণ হরে হরে। হরে রাম হরে রাম রাম রাম হরে হরে।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here