শিক্ষারত্ন পুরস্কার প্রাপ্ত শিক্ষক কলিমুল হকের জাল PHD ডিগ্রি ভুয়ো খবর দেখানোর অভিযোগে সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের বিরুদ্ধে আইনি নোটিশ

0
1141

নিজস্ব সংবাদদাতা, দুর্গাপুরঃ- সংবাদমাধ্যমকে মানুষ সমাজের প্রতিবিম্ব বলে মনে করতেন এতদিন। কিন্তু বেশ কিছু সংবাদমাধ্যমের কর্মী ও তাদের দ্বারা অনৈতিক কার্যকলাপের জন্য বারবারই কলুষিত হয়েছে সংবাদ জগৎ এর সম্মান। সাধারণ মানুষের মন থেকে সংবাদ মাধ্যমের প্রতি বিশ্বাসযোগ্যতা কমে আসছে ওইসব অসৎ সংবাদকর্মীদের জন্য । বিভিন্ন সময় বিভিন্ন সংবাদপত্রে বা সংবাদমাধ্যমে এমন কিছু বিভ্রান্তিকর তথ্য তুলে ধরা হয় যা আদতে সম্পূর্ণ ভুয়ো ও মিথ্যে বলে পরে জানা যায়। কালিমালিপ্ত হয় সংবাদ জগতের সম্মান।

এমনই এক ঘটনার সাক্ষী রইল দুর্গাপুর শিল্পাঞ্চল। গত ২৯ ও ৩০ শে জুন একটি সর্বভারতীয় বাংলা বৈদ্যুতিক সংবাদ মাধ্যমে ডক্টর কলিমুল হক এর পিএইচডি ডিগ্রী ভুয়ো বলে দাবি করা হয় ও খবর সম্প্রচার করা হয় বলে অভিযোগ। শিক্ষারত্ন পুরস্কার প্রাপ্ত শিক্ষক ডক্টর কলিমুল হক যিনি বহু দিন ধরেই দুর্গাপুরের নেপালি পাড়া হিন্দি হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন, তার বিরুদ্ধে একটি রাজনৈতিক দলের কর্মীরা গত ১লা জুলাই স্কুলের সামনে ডক্টর কলিমুল হক এর পিএইচডি ডিগ্রী ভুয়ো বলে দাবি করেন। উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে এই বিক্ষোভ-সমাবেশ সংঘটিত হয়েছিল বলে ডক্টর কলিমুল হক মনে করেন । ডাক্তার কলিমুল হক শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের শিক্ষক সংগঠনের একজন প্রথম সারির কর্মকর্তা। তাই বিরোধী রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে তাকে কালিমালিপ্ত করতে ও তার মান সম্মানকে আঘাত করার লক্ষ্যেই সেই দিনকে বেশ কয়েকজন হাতে প্ল্যাকার্ড ও স্লোগান দিয়ে তার স্কুলের সামনে তার পিএইচডি ডিগ্রী কে ভুয়ো বলে দাবি করেন বলে অভিযোগ। এই ঘটনার পরে দুর্গাপুর তথা রাজ্যের বেশ কয়েকটি সংবাদ মাধ্যমের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে সেই সংবাদটি নিজনিজ সংবাদ-মাধ্যমে পরিবেশন করেন। কিন্তু সংবাদমাধ্যমে সংবাদ পরিবেশন করার সময় তারা সরাসরি ডাক্তার কলিমুল হক এর পিএইচডি ডিগ্রী ভুয়ো বলে দেখাতে থাকেন বা খবর করেন বলে অভিযোগ ডাক্তার কলিমুল হকের আইনজীবীর। ডাক্তার কলিমুল হক জানান “যে বা যে সকল ব্যক্তি এই কুরুচিকর ও ভুয়ো খবর সংক্রান্ত বিষয়ে সাহায্যকারী ও মধ্যস্থতাকারী হিসেবে কাজ করেছেন তাদেরকে যথাসময়ে আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তাদের কাছে আইনি জবাবদিহি করবেন।”

এই ঘটনার পরেই শিক্ষক ডাক্তার কলিমুল হক দ্রুততার সাথে তার আইনজীবীর সঙ্গে যোগাযোগ করে উক্ত সংবাদমাধ্যম ও সংবাদ পরিবেশন কারি সকলকে আইনি নোটিশ পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু করেন। সেইমতো আজ দুর্গাপুরের একটি বেসরকারী হোটেলে এক সাংবাদিক সম্মেলনে ডাক্তার করিমুল হক ও তার কলকাতা উচ্চ আদালতের এর বিশিষ্ট আইনজীবী বিনয় কুমার পান্ডাকে নিয়ে হাজির হন সাংবাদিকদের মুখোমুখি। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে ডাক্তার কলিমুল হক ও তার আইনজীবী বিনয় কুমার পান্ডা জানান ” শিক্ষক ডাক্তার কলিমুল হকের বিরুদ্ধে যে কুরুচিকর ও উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে পিএইচডি ডিগ্রি জাল বলে খবর দেখানো হয়েছে তার বিরুদ্ধে তিনি বেশ কিছু সাংবাদিক ও সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিকে আইনি নোটিশের প্রক্রিয়া শুরু করেছেন। আইনি নোটিশে সময় দেওয়া থাকবে উপযুক্ত জবাবের অপেক্ষায়, যদি সময় মতন জবাব না আসে তাহলে তারা আদালতে মামলা রুজু করবেন বলেও জানান।” এদিন কলকাতা উচ্চ আদালতের আইনজীবী বিনয় কুমার পান্ডা আরো জানান ” আমার মক্কেলের নামে দেখানো ও ছাপা সমস্ত সংবাদ উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে করা হয়েছে। এই সংবাদ পরিবেশনের কারণে আমার মক্কেলের সম্মানহানি হয়েছে। তাই আমরা উপযুক্ত আইনী পদক্ষেপ এর দিকে এগোচ্ছি। যে সকল ব্যক্তিরা ই-মেইল এর মাধ্যমে মাননীয় রাজ্যপাল ও রাষ্ট্রপতিকে জাল পিএইচডির তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তিকর অভিযোগ করেছিলেন তাদের বিরুদ্ধেও যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আগামী দিনে আদালতের দ্বারস্থ হব ও আইনি নোটিশের প্রক্রিয়া শুরু করব ।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here