মা অন্নপূর্ণার মন্দিরের তালা ভেঙে দুঃসাহসিক চুরি, উধাও লক্ষাধিক টাকার সোনা ও রুপোর অলংকার, ঘটনাস্থলে পুলিশ

0
552

সংবাদদাতা, বাঁকুড়াঃ- গতকাল রাত্রে দুঃসাহসিক এক চুরির ঘটনা ঘটলো গঙ্গাজলঘাটি থানার অন্তর্গত কাপিস্টা গ্রামে। কাপিস্টা গ্রামের বিশিষ্ট সমাজসেবী হৃদয় মাধব দুবের বাড়িতে রয়েছেন অত্যন্ত জাগ্রত শ্রী শ্রী মা অন্নপূর্ণার মন্দির । আশেপাশের অঞ্চলের বহু মানুষ এই মন্দিরে আসেন দৈনন্দিন পূজার্চনার জন্য। আজ সকালে যখন মন্দিরের সেবায়েত মন্দির খুলতে যান তখন লক্ষ্য করেন যে মন্দিরের সবকটি তালায় ভাঙ্গা অবস্থায় রয়েছে। মন্দিরে ঘটে গিয়েছে এক দুঃসাহসিক চুরির ঘটনা। গত রাত্রে মন্দিরের বিগ্রহের পরনে থাকা ৭ থেকে ৮ ভরির সোনার, রুপোর গহনা ও সামগ্রী নিয়ে চম্পট দিয়েছে দুষ্কৃতকারীরা। যার আনুমানিক মূল্য প্রায় ৫ লক্ষ টাকা।

গঙ্গাজলঘাটি থানা এলাকার কাপিস্টা গ্রামে এর আগে কখনো এতো বড় দুঃসাহসিক চুরির ঘটনা ঘটেনি । এই প্রথম কাপিস্টা গ্রামে এত বড় দুঃসাহসিক চুরির ঘটনা ঘটলো । স্থানীয় এক বাসিন্দা জানিয়েছেন ” বাইরে থেকে বহু মানুষ এখানে রাজমিস্ত্রির কাজে নিযুক্ত হয়ে আছেন। গোটা গ্রাম জুড়ে বহিরাগত এইসব মানুষদের পরিচয় না জেনেই গ্রামে কাজ করতে দেওয়া টা আমাদের ঠিক হয়নি। হতে পারে এদের মধ্য থেকেই কেউ এই দুঃসাহসিক চুরির ঘটনায় যুক্ত।”

অন্যদিকে মন্দিরের প্রতিষ্ঠাতা তথা বিশিষ্ট সমাজসেবী হৃদয় মাধব দুবে জানান “গতরাত্রে কে বা কারা বাড়ির সমস্ত দরজার খিল বাইরের দিক থেকে দিয়ে দেয়, তারপর চারটি তালা ভেঙে মন্দিরে থাকা সমস্ত সোনার, রুপোর গহনা ও অলংকার, পূজোর কাজের বাসন সহ বেশ কিছু জিনিস নিয়ে উধাও হয়ে যায়, যার মূল্য লক্ষাধিক টাকা।” ইতিমধ্যেই তিনি গঙ্গাজলঘাটি থানার পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছেন । গঙ্গাজলঘাটি থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে সরেজমিনে তদন্ত করতে শুরু করেছে। পুলিশের বিশ্বাস খুব দ্রুত তারা এই অপরাধীদেরকে ধরে যথাযথ সাজা দিতে পারবেন।

এদিকে গ্রামের এক বিশিষ্ট সমাজসেবীর মন্দিরে এহেন দুঃসাহসিক চুরির ঘটনায় গোটা গ্রাম আতঙ্কিত। সাধারণ গ্রামবাসীদের এখন একটাই প্রশ্ন যেখানে একজন নামকরা বিশিষ্ট সমাজসেবীর বাড়িতে চুরি হতে পারে সেখানে সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা কোথায়?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here