লকডাউন না মেনে চললো উদ্দাম ডিজে নাচ, গ্রেপ্তার হল দুজন

0
591

সংবাদদাতা, বহরমপুরঃ- লকডাউন ! লকডাউন! লকডাউন! করোনা আতঙ্ক !মৃত্যু! ছোঁয়াচে রোগ! ভয়! ‌‌বিশ্ব মহামারী! (Stay at home /Work at home) এই কথাগুলো আমরা তো সবাই জানি। কিন্তু মানছি ক’জন? এখনো বাজারহাটে ভিড় করে যাচ্ছেন মানুষজন! এখনো চা খেতে যাচ্ছেন চা প্রেমীরা!পাড়ার মোড়ে মোড়ে এখন ও চলছে আড্ডা। নানা রাজ্য থেকে বিপুল পরিমাণে লোক আসছে মুর্শিদাবাদ নদিয়া ইত্যাদি জেলা গুলোয়। এখনো আমরা সতর্ক হচ্ছি না! সচেতন হচ্ছিনা!এরপর আমাদের জেলায় আমাদের পাড়ায় আমাদের নিকটবর্তী অঞ্চলে এই ভাইরাস হানা দিতে চলেছে জেনেও আপনারা এই বিষয়টিকে আজ ও হেসে উড়িয়ে দেবেন?এখনো ? মৃত্যুকে যদি ভয় পান তাহলে Eai Banglai টিমের পক্ষ থেকে অনুরোধ করছি ঘরে থাকুন। পরিবারের সাথে থাকুন তাহলেই একমাত্র আপনি/আপনারা বেঁচে যাবেন। ইতালী ও তৃতীয় স্টেজে দাঁড়িয়ে এই ভাইরাস কে পাত্তা দেয়নি। সিনেমা দেখেছে।ঘুরে বেড়িয়েছে। মস্তি করেছে। রেস্টুরেন্টে এ খেয়েছে। ফলস্বরূপ আজ ইতালী তে মৃত্যু মিছিল চলছে। ভারতকে বাঁচাতে নিজের রাজ্য নিজের জেলা সর্বোপরি নিজের স্ত্রী ,সন্তান,মা কে বাঁচাতে চাইলে আমাদের হাতে এখন একটাই উপায় স্বেচ্ছায় গৃহবন্দী হোন। এই লকডাউনের মাঝে আমাদের দেশের কিছু মানুষজন আজও লাগামহীন কাজ কর্ম করছেন। জানিনা এনারা কেন এরকম করছেন! কিন্তু সত্যিই শিউরে উঠতে হয় যখন দেখি ইতালির ছায়া পড়েছে আমাদের দেশেও। হ্যাঁ সত্যি! পুলিশ প্রশাসনের যাবতীয় বিধি নিষেধ কে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে চললো ডিজে!বক্স বাজিয়ে উদ্দাম নাচ! সোমবার রাতে ডিজে বক্স চালিয়ে খেজুরির কটারি গ্রামে বাইরের রাজ্য থেকে আসা শতাধিক যুবক সহ আরো অনেকে ডিজের সাথে নাচতে থাকেন। এলাকার স্থানীয় মানুষজনরা প্রতিবাদ করে এই ঘটনার। পুলিশ এরপর সক্রিয় হয়। খেজুরির পুলিশ ঐ অনুষ্ঠান বন্ধ করে আর দুজনকে গ্রেপ্তারও করে। তাই এখনো বলছি সচেতন হোন। নাহলে আমাদের দেশ টা ধ্বংস হয়ে যাবে। আমরাই পারি এই ধ্বংসলীলা আটকাতে। আবার ও একবার চোখ বন্ধ করে ভাবুন-” মৃত্যু!”র সময় ও আপনজনকে দেখতে পাবেননা শেষবার!থাকবেনা ছুঁয়ে দেখার অধিকার!- মা ,সন্তান,স্বামী, স্ত্রী প্রত্যেকেই আলাদা আলাদা ঘরে বন্দি!-এই কী চান?আপনার দুধের শিশু পড়ে পড়ে কাঁদলেও আপনি যেতে পারবেন না!সহ্য করতে পারবেন তো যদি এই দৃশ্য গুলো সহ্য করতে পারবেন কি? এই যন্ত্রনা গুলোকে কাল্পনিক ভুয়ো মিথ্যে বলে হেসে উড়িয়ে দিতে পারবেন কি?জানি পারবেন না কারণ আপনি ও কারোর বাবা,মা অথবা সন্তান।তাই আবার ও অনুরোধ করবো ঘরে থাকুন,ভালো থাকুন। পরমাত্মা যেন সকলকে সুরক্ষিত রাখেন!রক্ষা পাক আমার ভারত!রক্ষা পাক এই পৃথিবী!প্রার্থনা করুন সেই পরমাত্মার কাছে -নিজের জন্য ও নিজের প্রতিবেশীর জন্য।কারণ একা বাঁচা যায় না। সবেতন ছুটি দিন আপনার বাড়ির পরিচারিকা,ড্রাইভার দের।কারণ তারাও মানুষ।একটু মানবিক হোন।রাস্তার পাশে থাকা কুকুর বেড়াল দের দিকে এগিয়ে দিন বেঁচে যাওয়া খাবারটুকু।কারণ লকডাউনের এই সময়ে তাদেরকেও বাঁচতে হবে। নিজেও বাঁচুন অপরকেও বাঁচতে সাহায্য করুন। ঘরে থেকেই আজ দেশসেবা করুন। পরমাত্মা স্বয়ং কৃপা করবেন এই সংকটের মুহূর্তে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here