জল অপচয় বন্ধ করতে অভিনব যন্ত্রের আবিষ্কার বিষ্ণুপুরের যুবকের

0
1027

সংবাদদাতা, বাঁকুড়া:-

এই মুহূর্তে জল সংকট বিশ্বের দরবারে বড় সমস্যা। গোটা বিশ্ব জল সমস্যা নিয়ে ইতিমধ্যেই বিকল্প চিন্তা ভাবনা শুরু করে দিয়েছেন। মহারাষ্ট্র সহ বেশ কয়েকটি রাজ্যে ইতিমধ্যেই জল সংকট দেখা দিয়েছে।

আর এই জল সংকটের জন্য আমরা নিজেরাই দায়ী এমনটাই মনে করেন বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুর শহরের সেনহাটি কলোনির বাসিন্দা বছর ৩৫ এর সন্তু মজুমদার। তিনি মনে করেন বর্তমানে যেভাবে জল সংকট দেখা দিয়েছে তাতে একদিন আমাদেরকেও সেই ভয়ানক সংকটের সম্মুখীন হতে হবে। আর সেই চিন্তা ভাবনা থেকেই জল সংরক্ষণের জন্য অভিনব যন্ত্র আবিষ্কার তার। যে যন্ত্র আগামীদিনে অনেকটাই জল সংরক্ষণের কাজে আসবে বলে মনে করেন তিনি।

এই যন্ত্রটি ওয়াটার ট্যাংকে লাগাতে হয়। জলের ট্যাঙ্ক পাম্পের সাহায্যে ভর্তি করার সময় ওভারফ্লো হয়ে প্রতিদিনই প্রচুর জলের অপচয় হয়। কিন্তু এই মেশিন ট্যাংকে লাগানো হলে জলের অপচয় অনেকটাই রোধ করা সম্ভব হবে। কিভাবে কাজ করে এই যন্ত্রটি, যখন জলের ট্যাঙ্ক ভর্তি হয়ে যাবে তখন এই যন্ত্রের সেন্সার অটোমেটিক ভাবেই পাম্প মেশিন বন্ধ করে দেবে এবং যখন জলের ট্যাংক খালি হয়ে গেলে তখন অটোমেটিক ভাবেই পাম্প মেশিন চালু হয়ে যাবে। এক্ষেত্রে কাজ করে একটি সেন্সর মেশিন। ফলে ওভারফ্লো হয়ে জল অপচয়ের কোন সম্ভাবনা নেই। ইতিমধ্যেই জল সংরক্ষণের যন্ত্রটি বিষ্ণুপুর শহরে ব্যাপক চাহিদা তৈরি হয়েছে। অনেকেই এই যন্ত্রটি নিজেদের বাড়িতে জল ট্যাঙ্কে লাগাচ্ছেন। এতে একদিকে যেমন জলের অপচয় বন্ধ হবে অন্যদিকে তেমনি বিদ্যুতের খরচও কমবে।

সন্তু মজুমদার বলেন , জলের অপচয়ের জন্য আমি নিজেও দায়ী। আর তাই জল অপচয় বন্ধ করতে আমি এই যন্ত্রটি তৈরি করেছি। যাতে নিজেই জল অপচয় বন্ধ করতে পারি এবং অন্যদেরও সচেতন করতে পারি সেই চিন্তা ভাবনা থেকেই এই যন্ত্রটি তৈরি করেছি।

বিষ্ণুপুরের এক বাসিন্দা বলেন, এই যন্ত্রটি লাগানোর ফলে আমরা দারুণভাবে উপকৃত হয়েছি। কেননা এতে জল অপচয় যেমন করা সম্ভব তেমনি বিদ্যুতের খরচ অনেকটাই কম হবে। তাছাড়া নিয়ম করে বারবার জলের ট্যাঙ্ক ভর্তি করতে হয় না, সময়মত একাই জলের ট্যাঙ্ক ভর্তি হয়ে যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here