ধনতেরাসের দিন যেকোনো ধাতু কিনলে শ্রীবৃদ্ধি ঘটবে

0
400

জ্যোতিষ অমলাচার্য্যঃ– ধনত্রয়োদশী বা ধন্বন্তরী-ত্রয়োদশী, সংক্ষেপে ধনতেরাস। এই কার্তিক মাসের শুক্লপক্ষের এয়োদশী তিথিতে হয় ধনতেরাস ৷ এবার বৃহস্পতিবার ৪ নভেম্বর অমাবস্যা তিথিতে মা কালীর পুজো। দীপাবলি উৎসব । ২ নভেম্বর মঙ্গলবার ধনতেরাস। ৩ নভেম্বর বুধবার ভূত চতুদর্শী। পরপর উৎসব।

ধনতেরাস থেকে ভূত চতুর্দশী, প্রতিটি দিনেরই রয়েছে আলাদা মাহাত্ম্য।

ধন ত্রয়োদশী থেকে ধনতেরস শব্দের উৎপত্তি। পুরাণ মতে, সমুদ্র মন্থনে কুবেরের সঙ্গে উঠে এসেছিলেন দেবী লক্ষ্মী। সেই দিনটি ছিল কার্তিক মাসের কৃষ্ণপক্ষের ত্রয়োদশী তিথি। এই দিনই লক্ষ্মীর আরাধনায় মাতে গোটা দেশ। মূলত উত্তর ভারতের ধনতেরস এখন সর্বজনীন।

এই শুভ লগ্নে সমৃদ্ধি কামনায় গৃহস্থ বাড়িতে কেনা হয় মূল্যবান ধাতু ৷ সংসারের শ্রীবৃদ্ধি কামনায় চলে সোনা রুপা সহ বিভিন্ন ধাতু কেনা |শাস্ত্রে বলা হয় যে, ধনতেরাসে দিনে মূল্যবান ধাতুর জৌলুসে আকৃষ্ট হয়ে মা লক্ষী স্বয়ং আসেন গৃহস্থের বাড়িতে। আর সমৃদ্ধি লাভের জন্যই ধাতু কেনার প্রচলন রয়েছে এই সময় ৷

কিন্তু ধনতেরাস মানেই কী কেবলমাত্র সোনা কিনতে হবে?
শাস্ত্রমতে, এই সময় নিজের ক্ষমতা অনুযায়ী, যেকোনও শুদ্ধ ধাতুই কেনাই মঙ্গলজনক ৷ এইদিনে সোনা রুপা তামা পেতল প্রভৃতি ধাতু ছাড়া অন্যকিছু না কেনায় উচিত |

এইদিন বাড়িতে বাড়িতে প্রদীপ ধরানো হয়ে থাকে বাড়ির সকলের মঙ্গলের উদ্দেশ্যে। অশুভ শক্তির বিনাশ এর জন্য ধাতু কিনে প্রদীপ জ্বালিয়ে শুরু হয় ধনদেবী মা লক্ষ্মীর আরাধনা।

শাস্ত্রমতে ধনতেরাসের দিন মা লক্ষ্মীর পূজার বেশকছু নিয়ম রয়েছে। ধনতেরাস এর আগে সারা বাড়ি খুব ভালোভাবে পরিষ্কার করে নিতে হয়। কারণ মা লক্ষ্মী কখনোই নোংরা, অপরিচ্ছন্নতা পছন্দ করেন না। এইজন্যই ধনতেরাসের দিন সারা বাড়ি,বিশেষ করে মূল প্রবেশ পথের ওপর আলপনা দিতে হয়। মা লক্ষ্মীর পায়ের আলপনা আঁকতে হয়। এরপর নিজের মতো করে মা লক্ষ্মী দেবীকে পূজা করতে হয়।

আবার অনেকের বিশ্বাস, এইদিনে কোন ধাতব দ্রব্য কিনলে তা পরিমাণে তেরো গুণ বৃদ্ধি পায়। এই ধারণা থেকেই ধনতেরাসে সোনা রুপা কেনার প্রচলন রয়েছে। তবে শাস্ত্রমতে, এইদিনে নিজের ক্ষমতা অনুযায়ী যেকোনো শুদ্ধ ধাতু কেনায় মঙ্গলজনক। তাতে আসবে সমৃদ্ধি।

অনেকপূর্বে এই ধনতেরাস উৎসব অবাঙালিদের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। এখন বাঙালিরাও সামিল হয়েছে। আজ থেকে ২৫-৩০ বছর আগে সাধারণ মানুষ যাদের তেমন ক্রয়ক্ষমতা ছিলনা, তারা বাসনকোসন কিনতেন এইদিনে। কিন্তু কখনোই তারা ঝাড়ু-ঝাঁটা কিনতেন না। ইদানিং কয়েক বছর যাবৎ এইসব কেনার ধুম পড়েছে। আসলে যে যা বলে দিচ্ছে তার পেছনেই ছুটছে মানুষ।

তবে জ্যোতিষ শাস্ত্রমতে, বিভিন্ন রাশির জাতক- জাতিকাদের জন্য বিভিন্ন ধাতু কেনা উচিত ৷ তবেই ধনতেরাস হয়ে উঠবে মঙ্গলজনক ৷ আসবে সমৃদ্ধি
বহুগুণ ।

মেষ- এই রাশির জাতকদের ধনতেরাসের দিনে রুপোর বাসন কেনা উচিত। এর ফলে লাভ হবে। রুপো কিনলে কুবের প্রসন্ন হন এবং অর্থ বৃদ্ধি হয়।

বৃষ- রুপোর জিনিস বা অলঙ্কার কেনা শুভ। বৃষর অধিপতি গ্রহ শুক্র, যা সুখ, সম্পন্নতা ও বৈভবের প্রতিনিধিত্ব করে। তাই ধন বৃ্দ্ধির জন্য বৃষ রাশির জাতকদের রুপোর বস্তু কেনা উচিত।

মিথুন- এই রাশির জাতকদের সোনা কেনা উচিত। আবার সবুজ রঙের ঘরোয়া জিনিস কিনলে বাড়িতে ধন সম্পদ বজায় থাকে।

কর্কট- এদিন রুপোর জিনিস কিনতে পারেন। এর প্রভাবে অর্থাভাব হবে না।

সিংহ- এই রাশির জাতকদের সোনা কিনতে পারলে শুভ । এর পাশাপাশি বাসন কিনলে শুভ ।

কন্যা- কাঁসার তৈরি জিনিস কিনতে পারেন কন্যা রাশির জাতকরা। এ ধরনের বস্তু ক্রয় করলে ধন বৃদ্ধি হবে।

তুলা– ধনতেরাসের শুভ প্রভাব বৃদ্ধির জন্য তুলা রাশির জাতকদের সৌন্দর্য সংক্রান্ত জিনিস কেনা উচিত। আতর, সোনা-রুপোর অলঙ্কার কিনতে পারেন। এদিন রুপোর গহনা বা কয়েন কিনলে অবশ্যই শুভ |

বৃশ্চিক– ধনতেরাসের দিনে সোনার গহনা ও কয়েন অথবা তামার বাসন কেনা উচিত বৃশ্চিক জাতকদের। পেতল ও কিনতে পারেন।

ধনু– এই রাশির জাতকরা ধনতেরাসের দিনে গাড়ি ও রুপোর বাসন কিনতে পারেন। ধনু রাশির জাতকদের জন্য রুপো অত্যন্ত শুভ। এদিন রুপোর বাসন, গহনা, কয়েন কিনলে সমৃদ্ধি লাভ করবেন।

মকর- লোহার তৈরী সরঞ্জান কেনা শুভ। রুপো ও স্টিলের বাসনও কিনতে পারেন।

কুম্ভ- এই রাশির অধিপতি শনি হওয়ায়, আপনারা ধনতেরাসের দিনে রুপোর পাশাপাশি স্টিলের বাসন কিনতে পারলে অত্যন্ত শুভ |

মীন– বৃহস্পতি এই রাশির অধিপতি। ধনতেরাসের দিনে রুপোর বাসন বা গহনা কিনতে পারেন। রুপো মীন রাশির জাতকদের জন্য অত্যন্ত শুভ। ধনতেরাসে রুপোর বাসন বা সোনার কয়েন কিনলে শুভ ফল লাভ করা যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here