দুরাচারী সুখ পাচ্ছেন, আর সৎ ব্যক্তি কষ্ট, কেন এমনটা হয় কারণ জানুন

0
375

সংগীতা চৌধুরী, বহরমপুরঃ- মানুষ যখন কোনো ভালো কাজ করার পরে খুব খারাপ কোনো ফল লাভ করে তখন স্বাভাবিকভাবেই তার মন দুঃখ কষ্টে পরিপূর্ণ হয়। ধর্ম পথে চলার পরেও কেউ যখন কষ্ট পায়, তখন স্বাভাবিকভাবেই তার মনে এই দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয় যে, ধর্মের পথে চলার তাৎপর্য কী? নিজের কোন ভাল কাজ করার বদলে যখন দুঃখ লাভ হয় আর দুঃস্কর্ম করেও যখন কেউ সুখ লাভ করে, তখন মানুষের মন বিচলিত হয়ে ওঠে মানুষ ভাবতে শুরু করেন ধর্মের পথে চলার তাৎপর্য কী?

এই সকল প্রশ্নের উত্তর শাস্ত্রে খুব সুন্দর ভাবে দেওয়া আছে। ভগবান শ্রীকৃষ্ণ এই প্রসঙ্গে খুব সুন্দর ভাবে বলেছিলেন যে ধর্ম পালনকারী ব্যক্তি যখন কষ্ট ভোগ করেন ও দুরাচারী ব্যক্তি যখন সুখ ভোগ করেন তখন কতগুলি বিষয় অবশ্যই দেখা উচিত। সেই বিষয় গুলি কী কী জানেন?

একজন দুরাত্মাকে কী ভোগ করতে হয় সেটাও দেখুন। দুঃস্কর্ম যে করে তার মন সর্বদা চঞ্চল থাকে, ব্যাকুল হতে থাকে, মনে সর্বদা নতুন নতুন সংঘর্ষ উৎপন্ন হয়। অবিশ্বাস তাকে সারাজীবন ছোটাতে থাকে, একে কী সুখ বলে? যে ব্যাক্তি ধর্মের পথে চলে সর্বদা সুকর্মে লিপ্ত থাকে,সৎ চরিত্রের অধিকারী সেই ব্যক্তির হৃদয়ে সর্বদা শান্তি থাকে। পরিস্থিতি তার জীবনের সুখের বাধা হয়ে দ্বারায় না। সমাজে তার সম্মান আর মনের সন্তোষ অক্ষত থাকে সর্বদা। অর্থাৎ ভালো ব্যবহার ভবিষ্যতে সুখের পথ দেখায় না, ভালো ব্যবহার নিজেই সুখ দেয়,অন্যদিকে দুর্ব্যবহার ভবিষ্যতে দুঃখের পথ দেখায় না, অধর্ম সেই মুহুর্তেই দুঃখকে উৎপন্ন করে। ধর্ম থেকে সুখ পাওয়া যায় না, ধর্মই স্বয়ং সুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here