স্নানযাত্রার পর জগন্নাথ গণেশ বেশ ধারণ করেছিলেন! কেন!

0
521

বহরমপুর থেকে সঙ্গীতা চৌধুরী : জ্যৈষ্ঠ মাসের পূর্ণিমাতেই জগন্নাথদেব অবতরণ করেছিলেন। এই দিন শ্রীজগন্নাথের পুণ্য জন্মদিবস। তাঁর আজ্ঞাক্রমেই এই জ্যৈষ্ঠী পূর্ণিমা দিবসে তাঁর মঙ্গল অধিবাস। ইন্দ্রদ্যুম্ন মহারাজের বিধানেই জগন্নাথদেবের জন্মতিথি প্রত্যেক জ্যৈষ্ঠ‌ পূর্ণিমায় পালন হয় যা মহাস্নান যাত্রা মহোৎসব নামে পরিচিত। শ্রীশ্রী জগন্নাথদেবের স্নানযাত্রার পর শ্রীজগন্নাথদেব যে গণেশ বেশ বা হস্তিবেশ ধারণ করেন সে সম্বন্ধে একটি প্রাচীন কাহিনী আছে। উৎকল ভাষায় রচিত ‘দার্ঢ্যতাভক্তি’ নামক একটি গ্রন্থ থেকে এই ঘটনার উল্লেখ পাওয়া যায়।
একবার কর্ণাটক দেশের কানিয়ারি গ্রামের গণপতি ভট্ট নামের একজন ব্রাহ্মণ শ্রীনীলাচলে স্নানযাত্রা দিবসে উপস্থিত হন। ব্রাহ্মণটি গাণপত্য বা শ্রীগণেশের একান্ত ভক্ত ছিলেন। তিনি শ্রী জগন্নাথ দেবের স্নানাভিষেকের পর ভগবানকে দর্শন করতে যান। কিন্তু জগন্নাথ মূর্তিতে নিজের অভীষ্টদেব কে অর্থাৎ শ্রীগণপতি দেবকে দেখতে না পেয়ে গণপতি ভট্ট ‘ব্রহ্ম নীলাচলে নাই’ এরূপ সিদ্ধান্ত করেন। ভক্তবৎসল শ্রী জগন্নাথদেব গণপতি ভট্টের ঐকান্তিক বিশ্বাসে মুগ্ধ হয়ে যান এবং ভগবান সিদ্ধান্ত নেন যে তিনি গজাননরূপে প্রকটিত হবেন এবং গণপতি ভট্টের প্রার্থনানুসারে ‘যাবচ্চন্দ্র দিবাকর’ স্নানযাত্রা মহোৎসবের পর শ্রীগণেশ বেশ ধারণ করতে প্রতিশ্রুত হন। ভক্তের মনোবাঞ্ছা তিনি পূর্ণ করেন তাই তাঁর অপর নাম ভক্তবৎসল বাঞ্ছাকল্পতরু। তাঁর কাছে শুদ্ধ মনে ভক্তির সাথে কিছু চাওয়া হলে তিনি অবশ্য ই তা পূর্ণ করেন। গণপতিভট্ট এরপর ভগবানের গণপতি বেশ দেখে খুশি হন। এবং তারপর থেকে প্রতিবছর স্নানযাত্রার পর শ্রীজগন্নাথ ও বলরামের স্নান বেদিতেই ‘গণেশবেশ’ এবং সুভদ্রাদেবীর ‘পদ্মবেশ’ হয়ে থাকে। মহারাজ শ্রীইন্দ্রদ্যুম্নের প্রতি শ্রীজগন্নাথের এইরকম আদেশ ছিল যে মহাস্নানযাত্রার পরবর্তী পঞ্চদশ দিবসকাল শ্রীভগবানকে অঙ্গরাগবিহীন বিরূপ অবস্থায় কেউ দর্শন করবে না-“ততঃপঞ্চদশাহাদি স্নাপয়িত্বা তু মাৎ নৃপ।
অচিত্রং বা বিরূপং বা ন পশ্যেত কদাচন॥”(উৎকল খণ্ড: ২৯/২৯)

শ্রীজগদীশের আজ্ঞানুসারে এই পঞ্চদশ দিবসকাল শ্রীমন্দিরের দ্বার রুদ্ধ থাকে। এই সময়কে ‘অনবসরকাল’ বলা হয়। এরপর ভগবানের জ্বর হয় এবং পুনরায় তাকে সুন্দর বেশে সাজানো হয়। জগন্নাথ কে সুন্দর বেশে সাজানোকেই ‘নেত্রোৎসব’ বা
‘নব যৌবনোৎসব ‘বলা হয়।জয় ভক্তবাঞ্ছাকল্পতরু জগন্নাথদেব কি জয়!প্রেম সে বলো হরি বোল!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here