একদিকে “বিশ্ব ডায়াবেটিক দিবস” অন্যদিকে “রসগোল্লা দিবস” আজব কান্ড দুর্গাপুর শহরে

0
995

নিজস্ব প্রতিনিধি, দুর্গাপুর:- আজকের দিনটি শিশু দিবস বলে গণ্য করা হয় তাই স্কুলে স্কুলে পালিত হচ্ছে দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী পন্ডিত জহরলাল নেহেরুর জন্ম দিন উপলক্ষে “শিশু দিবস”। আজই আবার বিশ্ব “ডায়াবেটিস দিবস” তাই দুর্গাপুরের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের পক্ষ থেকে “বিশ্ব ডায়াবেটিক উৎসব” পালন করা হচ্ছে। দুর্গাপুরের কাশীরাম দাস রোড সংলগ্ন ময়দানে “বেঙ্গল ডায়াবেটিক ফাউন্ডেশন” নামক এক সংস্থা আয়োজন করেছে “রান ফর ডায়াবেটিস” এই অনুষ্ঠানটির। সকাল আটটা থেকে শুরু হয় একটি প্রতীকী দৌড় প্রতিযোগিতা যার পোশাকি নাম দেওয়া হয় রান ফর ডায়াবেটিস। দুর্গাপুর ইস্পাত নগরীর অনেক ছাত্র-ছাত্রী তথা ক্রীড়াপ্রেমী অংশ নেন এই দৌড় প্রতিযোগিতায়। দুর্গাপুরের বি-জন ক্লাব সমন্বয় এবং দত্ত অটোমোবাইলস্ এর যৌথ উদ্যোগে এই অনুষ্ঠানটি শুরু হয়। মাত্র ১৫০ টাকা দিয়ে প্রায় ৩০ রকমের চিকিৎসার সুবিধা দেওয়া হচ্ছে এখানে। সাধারণ মানুষকে বিনা পয়সায় চিকিৎসা করা হচ্ছে। সুগার বা ডায়াবেটিস রোগীদের কে বিনামূল্যে রক্ত পরীক্ষা এবং ইসিজি হচ্ছে এই স্বাস্থ্য মেলায়। দুর্গাপুর ইস্পাত নগরীর সমস্ত বাসিন্দা এই অনুষ্ঠানটি তাদের এলাকাতে হওয়ায় আনন্দিত ও উৎসাহিত। অবাক করা কান্ড হলো এই অনুষ্ঠানস্থল থেকে মাত্র ১০০ মিটার দূরে শরৎচন্দ্র রোডের উপর অবস্থিত একটি বিখ্যাত মিষ্টান্ন ভান্ডার নিউ পূর্ণিমা সুইটস আজ পালিত করছে “রসগোল্লা দিবস”। বাংলার রসগোল্লার জি.আই. প্রাপ্তির দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি পালন করছে “পশ্চিমবঙ্গ মিষ্টান্ন ব্যবসায়ী সমিতি” এই উপলক্ষে আজ রাজ্যজুড়ে তারা রসগোল্লা উৎসবের আয়োজন করেছেন। তাই দুর্গাপুর শহরের নিউ পূর্ণিমা সুইটসে চলছে “রসগোল্লা দিবস”। নিউ পূর্ণিমা সুইটসের কর্ণধার রাজু বাবু জানান তারা পশ্চিমবঙ্গের রসগোল্লার জি.আই.মার্ক পাওয়ার দ্বিতীয় বর্ষ উদযাপন করছেন। এই মর্মে তারা আগত সমস্ত ক্রেতাকে গরম গরম রসগোল্লা খাইয়ে স্বাগত জানাচ্ছেন। এই উৎসবটি পালন করে সকাল থেকেই তাই ভিড় হয়েছে চোখে পড়ার মতো। ইস্পাত নগরী বহু বাসিন্দা সকাল বেলার থেকেই লাইন দিয়ে নিউ পূর্ণিমা সুইটস থেকে গরম গরম রসগোল্লা খাচ্ছেন। ইস্পাত নগরীর এক বয়স্ক ব্যক্তিকে দেখা গেল তিনি কিছুক্ষণ আগেই ১০০ মিটার দূরে অবস্থিত ডাইবেটিস মেলা থেকে রক্ত পরীক্ষা করে এসে নিউ পূর্ণিমা সুইটস রসগোল্লা খাচ্ছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই বয়স্ক ব্যক্তিকে কে যখন জিজ্ঞেস করা হলো যে আপনি এক্ষুনি ডায়াবেটিসের ক্যাম্প থেকে এসে রসগোল্লা খাচ্ছেন, তখন তিনি হাসতে হাসতে জবাব দিলেন “রসগোল্লার লোভ কি আর সামলানো যায়, তাই এক দুই পিস খেলাম আর কি।” উপস্থিত সকল ক্রেতা ও দোকানের কর্মচারীরা এই জবাব শুনে হাসতে হাসতে লুটোপুটি খাওয়ার মতন অবস্থা। এই কারণেই হয়তো আলেকজান্ডার যেদিন কে প্রথম ভারতবর্ষকে দেখেছিলেন সেদিনকে তার সেনাপতি সেলুকাস কে বলেছিলেন “সত্যি সেলুকাস কি বিচিত্র এই দেশ”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here